kalerkantho


শীতলক্ষ্যায় উদ্ধার গাড়িটি নিখোঁজ জাপা নেতা হেফজুরের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১০:৩৪



শীতলক্ষ্যায় উদ্ধার গাড়িটি নিখোঁজ জাপা নেতা হেফজুরের

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে উদ্ধার করা প্রাডো গাড়ির মালিকের সন্ধান পাওয়া গেছে। তার নাম খন্দকার হেফজুর রহমান।

প্রায় সাড়ে ৫ মাস আগে জাপা নেতা হেফজুর রহমানকে ওই গাড়িটিসহ অজ্ঞাতরা অপহরণ করে। নদীর তলদেশ থেকে তার ব্যবহৃত গাড়িটি উদ্ধার হলেও হেফজুরের সন্ধান এখনো মিলেনি বলে পরিবারের সদস্যরা দাবি করেছে। হেফজুরের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার কসবা উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামে। তিনি জাতীয় পার্টি (আনোয়ার হোসেন মঞ্জু) থেকে  ব্রাহ্মণবাড়ীয় ৪ আসনে সংসদ নির্বাচনে বাইসাইকেল প্রতীকে নির্বাচন করেছিলেন।

কাপাসিয়া থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানান, কাপাসিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের দস্যুনারায়নপুর বাজারসংলগ্ন শীতলক্ষ্যা নদীতে একটি মাছের ঘেরে মাছ ধরার সময় জেলেদের জালে গত ১৯ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকেলে বিলাসবহুল একটি প্রাডো জিপ গাড়ি আটকা পড়ে। পরে পানির নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়।

গাড়িটি উদ্ধারের পর কাপাসিয়া থানার এসআই মো. দুলাল মিয়া আদালতের অনুমতি নিয়ে গাড়ির চেসিস ও ইঞ্জিন নম্বর দিয়ে বিআরটিএতে অনুসন্ধান চালায়। এতে গাড়িটির প্রকৃত মালিক ও গাড়ির নম্বর পাওয়া যায়। ওই গাড়ির মালিকের নাম খন্দকার হেফজুর রহমান।

মঙ্গলবার রাতে খন্দকার হেফজুর রহমানের স্ত্রী সালেহা বেগম কাপাসিয়া থানায় এসে নদী থেকে উদ্ধারকৃত প্রাডো গাড়িটি শনাক্ত করেন।

হেফজুর রহমানের স্ত্রী সালেহা বেগম জানান, ২০১৫ সালের ৭ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টার দিকে ঢাকার বাড্ডার ৬৭/৩ নম্বর বাড়ি থেকে বের হন তার স্বামী। তার দেহরক্ষী ক্যাপ্টেন (অব.) শওকত, আব্দুল আওয়াল এবং তার ব্যবহৃত প্রাডো গাড়ির চালক মো. শাহ আলম এ সময় তার সাথে ছিলেন। পরে ২৫ সেপ্টেম্বর গুলশান থানা পুলিশ এ-সংক্রান্ত মামলা (নম্বর ৬৩) গ্রহণ করে। ওই সময় মামলাটি তদন্ত করেন এসআই মোহাম্মদ আলী হাসান।

সালেহা বেগম জানান, তার স্বামী ঢাকার মণিপুর থেকে জনৈক ব্যক্তির কাছ থেকে পুরনো প্রাডো গাড়িটি ক্রয় করেন। তার ব্যবহৃত গাড়িটির রেজি. নাম্বার ঢাকা মেট্রো- ঘ- ১১- ৫৭৫৬, তারিখ- ২৭/১১/২০০৪। পরে ওইসব লোকজন গাড়িটির নম্বরপ্লেট (ঢাকা মেট্টো- ঘ- ১১- ২০২৯) পরিবর্তন করে ফেলে।

নিখোঁজ হেফজুর রহমানের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, খন্দকার হেফজুর রহমান ব্রাহ্মণবাড়ীয় ৪ আসন থেকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি (মঞ্জু) থেকে বাইসাইকেল প্রতীকে অংশ নেন। তিনি জমি কেনা-বেচার ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলেন।

 


মন্তব্য