kalerkantho


আজ মেলায় ছিল একুশের প্রস্তুতি : কাল নামবে ঢল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:২৭



আজ মেলায় ছিল একুশের প্রস্তুতি : কাল নামবে ঢল

আর কয়েক ঘণ্টা পরেই অমর একুশের প্রথম প্রহর। ভাষার জন্য যে বীর সন্তানেরা জীবন দিয়ে গেছেন, তাঁদের শ্রদ্ধা জানাতে নগরী জুড়ে থাকবে বাঙালির সরব পদচারণা। সবারই গন্তব্য হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।
তবে ভোরের আলো যখন সকল ৮টার কাঁটায় গিয়ে পৌঁছবে, তখন এ ঢল গিয়ে পড়বে অমর একুশের গ্রন্থমেলায়।
কারণ আগামীকাল শোক আর গর্বের সমন্বিত চেতনায় উজ্জীবিত বাঙালি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধার্ঘ জানিয়েই মেলামুখী হবেন।
তাদের আগমনকে স্বাগত জানানোর প্রস্তুতি নিতেই আজ সোমবার ব্যস্ততায় দিন পার করেছেন প্রকাশক ও বিক্রেতারা। স্টলে স্টলে অধিক সংখ্যক বই উঠাতে তৎপর দেখা গেছে প্রকাশককে। দেখা গেছে কবিতার বইগুলোর স্থান পেছন থেকে সামনে চলে এসেছে।
প্রকাশক-বিক্রেতারা বাসসকে জানান, একুশে ফেব্রুয়ারিতে কবিতার বই বেশি চলে বলে বইগুলো সামনের সারিতে নিয়ে এসেছি। তবে আজ একুশের আগের দিনেও বেঁচাবিক্রি ভালো হয়েছে। কিন্তু আসল ভিঁড়টি নামবে কাল, একুশের দিনে।

 
কাল সকাল ৮টা থেকে টানা রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে মেলার দ্বার।
আজ অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২০তম দিনে নতুন বই এসেছে ৯৪টি এবং ৩৮টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।  
বিকেলে গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘উন্নতমানের শিক্ষা: সামাজিক অগ্রগতির চাবিকাঠি’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী সভাপতিত্ব করেন। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. মনজুর আহমেদ। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-অর-রশিদ এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধূরী।  
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার প্রায় অর্ধশতাব্দীর দ্বারপ্রান্তে বাংলাদেশ। সাক্ষরতার দিক দিয়ে আমরা অনেকটা অগ্রগতি অর্জন করলেও সামগ্রিকভাবে শিক্ষার মান নিশ্চিত করা যায়নি। তদুপরি তিন ধারার শিক্ষাব্যবস্থা, শিক্ষায় বাণিজ্যিক তৎপরতা এবং সাম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গির অনুপ্রবেশ আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে হুমকির সম্মুখীন করেছে। এ বিষয়ে আশু ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করা না গেলে প্রকৃত শিক্ষিত জাতি গঠনের স্বপ্ন অধরাই থেকে যাবে।  
আলোচকবৃন্দ বলেন, শিক্ষাকে শিক্ষার্থীদের নিকট পরীক্ষা ও চাকরি লাভের সুযোগের ভেতর সীমাবদ্ধ রাখলে এর প্রকৃত সুফল লাভ করা যাবে না। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় সংখ্যাগত উন্নয়ন ঘটলেও গুণগত উন্নয়নের বিষয়টি এখনও পুরোপুরি নিশ্চিত করা যায়নি। তারা বলেন, শিক্ষাব্যবস্থায় অসাম্প্রদায়িক জীবনদর্শন ও মানবিক প্রত্যয়ের সংযোগ না ঘটলে তা দেশের গণমুখী উন্নয়নে কোন ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হবে। এ বিষয়ে সরকার, শিক্ষা-কারিকুলাম প্রণয়ন কর্তৃপক্ষ এবং সর্বস্তরের নাগরিকদের সচেতন দৃষ্টিভঙ্গি খুবই প্রয়োজন।  
সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে লোপা খানের পরিচালনায় ‘আবৃত্তিশীলন’-এর বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশনা ছাড়াও আবৃত্তিশিল্পী ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, সায়েরা হাবীব, ঝর্ণা সরকার এবং তামান্না নীপা আবৃত্তি পরিবেশন করেন।  
একাডেমির অমর একুশের সূচি : 
আগামীকাল মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে বাংলা একাডেমি বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এতে আজ রাত সাড়ে ১২টায় কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খানের নেতৃত্বে বাংলা একাডেমির পক্ষ থেকে ভাষা আন্দোলনের অমর শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। কাল সকাল সাড়ে ৭টায় একুশে গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে রয়েছে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর। এতে কবি মোহাম্মদ সাদিক সভাপতিত্ব করবেন।  
বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ধর্মীয় বহুত্ববাদ : বাঙালি গৌরবময় উত্তরাধিকার শীর্ষক বক্তৃতানুষ্ঠান। সভাপতিত্ব করবেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ড. আবদুল মমিন চৌধুরী। স্বাগত ভাষণ প্রদান করবেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান। সন্ধ্যায় থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।  


মন্তব্য