kalerkantho


সড়ক দুর্ঘটনা রোধে ২২৭টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত: সেতুমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২০:১১



সড়ক দুর্ঘটনা রোধে ২২৭টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত: সেতুমন্ত্রী

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে জাতীয় মহাসড়কে ২২৭টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। আজ সোমবার সংসদে সরকারি দলের সদস্য বেগম ফজিলাতুন নেসা বাপ্পি’র এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন এ্যাকসিডেন্ট রিসার্স ইনস্টিটিউট (এআরআই) এর সহায়তায় জাতীয় মহাসড়কে মোট ২০৯টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত করা হয়। পরবর্তীতে সওজ কর্মকর্তারা পরিদর্শনের ভিত্তিতে আরো ১৮টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত করা হয়। ফলে মোট ২২৭টি দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থান চিহ্নিত করা হয়। এর মধ্যে ২৭টি স্থানে রক্ষণাবেক্ষণ খাত হতে সওজ’র মাঠ পর্যায় ইতোমধ্যে প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এবং ৫৬টি স্থানের কাজ বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় যথা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ৩১টি, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ১০টি, জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের মধ্যে ১৫টি স্থান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, অবশিষ্ট ১৪৪টি দুর্ঘটনা প্রবণ স্থানের কাউন্টারমেজার্স প্রণয়ন করে সরকারের অর্থায়নে ১৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘জাতীয় মহাসড়কের দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থানসমূহ সড়ক নিরাপত্তা উন্নয়ন প্রকল্প’ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ বর্তমানে চলমান রয়েছে।

তিনি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস কল্পে ২০১৪ সাল থেকে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়কালে সড়ক নিরাপত্তা ও গণসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক শ্লোগান সম্বলিত বিভিন্ন প্রকার ৮ লাখ ২৫ হাজার লিফলেট এবং ১২ লাখ ২৪ হাজার স্টিকার বা পোস্টার গাড়ি চালক, যাত্রী, পথচারী ও সড়ক ব্যবহারকারীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়কালে ৯২ হাজার ৩৮৬টি মামলার মাধ্যমে মোট ৮ কোটি ১৪ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬৭ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ১ হাজার ৫৪২ জন আসামীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড প্রদান এবং ৩ হাজার ৯৩৯টি গাড়ি ডাম্পিং স্টেশনে পাঠানো হয়েছে।


মন্তব্য