kalerkantho


'বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২০:৪৩



'বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে'

বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে মন্তব্য করেছেন কানাডার হাইকমিশনার বিনো পিয়েরে লারামি।

তিনি বলেছেন, মানবাধিকার রক্ষায় এ সরকারের উদ্যোগ প্রশংসনীয়।

রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মানবাধিকার রক্ষায় একযোগে কাজ করা উচিত।  

আজ বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার কুতুপালং এলাকায় দুটি রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করার পর তিনি এ মন্তব্য করেন। তার সঙ্গে ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেক ও অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জুলিয়া নিব্লেট ছিলেন।

এ সময় তাঁরা মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে সম্প্রতি পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মুখ থেকে সেখানকার সেনাবাহিনীর হত্যা-ধর্ষণ, দমন-পীড়নের বর্ণনা শোনেন।  

অ্যালিসন ব্লেক বলেন, শিবির পরিদর্শন করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অবস্থা জানা গেল। পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা সে দেশে সেনাবাহিনীর হাতে নির্যাতন, ধর্ষণ ও হত্যার বর্ণনা দিয়েছেন। এ নির্যাতন গণহত্যার শামিল।

অস্ট্রেলীয় হাইকমিশনার জুলিয়া নিব্লেট বলেন, রোহিঙ্গারা যাতে নিজের দেশে ফিরতে পারে, আর নির্যাতনের শিকার না হয়, তার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে আরও জোরালো উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন।  

আজ সকাল ১০টার দিকে তিন হাইকমিশনার কক্সবাজার থেকে সড়কপথে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার দূরে উখিয়া পৌঁছান।

এরপর সেখানকার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইএমও) এবং উন্নয়ন সংস্থা ‘এসিএফ’র স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। বেলা ১১টায় পৌঁছান ১০ কিলোমিটার দূরে উখিয়ার কুতুপালং অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবিরে। এখানে টানা কয়েক ঘণ্টায় তারা (তিন রাষ্ট্রদূত) মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে সদ্য পালিয়ে আসা অন্তত ৩০ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষের সঙ্গে কথা বলেন।


মন্তব্য