kalerkantho


রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে তিন দেশের রাষ্ট্রদূত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:১৬



রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে তিন দেশের রাষ্ট্রদূত

ফাইল ফটো

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন তিন দেশের রাষ্ট্রদূত।
আজ বৃহষ্পতিবার ব্রিটেনের রাষ্ট্রদূত অ্যালিসন ব্লেক, কানাডার রাষ্ট্রদূত বিনো পিয়েরে লারামি এবং অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রদূত মিজ জুলিয়া নিবলেট রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।
রাষ্ট্রদূতগণ সকাল ১০টা থেকে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখেন। পরে ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়ে বিভিন্ন এনজিও সংস্থা, সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করেন।  
ক্যাম্প ইনচার্জ শামশুদ্দোজা জানান, প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন বিষয়ে তারা জানতে চান। পরে তিন দেশের রাষ্ট্রদূত রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখেন এবং রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলেন।  
ক্যাম্প ইনচার্জ জানান, বিদেশি তিন রাষ্ট্রদূতদের কাছে রোহিঙ্গারা সেদেশের সেনা বাহিনীর নির্যাতনের যে বর্ণনা দিয়েছেন তা অত্যন্ত নির্মম ও মর্মস্পর্শী।  
বেলা ১০ টার দিকে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গিয়ে পৌঁছেন তিন দেশের রাষ্ট্রদূত। তাঁরা প্রথমে একটি স্কুল পরিদর্শন করেন। ওখানে শিশুদের শিক্ষাদানের পদ্ধতি ও প্রক্রিয়া সম্পর্কে আলাপ করেন। এরপর তাঁরা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নতুন আসা ৩০ জন নারী পুরুষের সাথে আলাপ করেন এবং তাদের ওপর নির্যাতনের তথ্য নেন।

এরপর নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।
পরিদর্শন শেষে ব্রিটেনের রাষ্ট্রদূত অ্যালিসন ব্লেক সাংবাদিকদের বলেন, কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শন করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির বসবাস দেখেছেন। পালিয়ে আসা মানুষ তাদের নির্যাতন হত্যার বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি বলেন, বৃটিশ সরকার রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরার ব্যবস্থা করতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছে।
কানাডার রাষ্ট্রদূত বিনো পিয়েরে লারামি বলেন, বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে আশ্রয় দিয়ে ভালো কাজ করেছেন। মানবাধিকার রক্ষায় এ সরকারের উদ্যোগ প্রশংসিত। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির মানবাধিকার রক্ষায় এখন সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে হবে।
অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রদূত মিজ জুলিয়া নিবলেট বলেন, রোহিঙ্গারা যেন নিজের দেশে ফিরতে পারে, নির্যাতনের শিকার না হন তার জন্য আন্তর্জাতিক ভাবে আরো জোরালো উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন।  
কুতুপালং ক্যাম্প পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বলেন, রাষ্ট্রদূতগণ নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্যানিটেশন, সুপেয় পানি সরবরাহ, শিক্ষা-স্বাস্থ্য সহ ক্যাম্পে উন্নয়নমূলক কাজে রোহিঙ্গাদের সম্পৃক্ততা প্রত্যক্ষ করেছেন। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উখিয়া সার্কেল) চাইলা প্রু মারমা, ক্যাম্প ইনচার্জ মোঃ শামশুদ্দোজা উপস্থিত ছিলেন।  


মন্তব্য