kalerkantho


'২০১৯ সালের মধ্যে ২ লাখ ৮০ হাজার গৃহহীনকে পুনর্বাসন করা হবে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:৪৮



'২০১৯ সালের মধ্যে ২ লাখ ৮০ হাজার গৃহহীনকে পুনর্বাসন করা হবে'

ফাইল ফটো

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ২০১৯ সালের মধ্যে সারাদেশের ২ লাখ ৮০ হাজার গৃহহীনকে পুনর্বাসন করা হবে।  
সংসদ কার্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী আজ সংসদে সরকারি দলের সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর এক প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, প্রাথমিকভাবে চলতি ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের মাধ্যমে ১৫ হাজার গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে। আগামী ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে গৃহহীন পরিবারকে নিজ জমিতে ঘর করে দেয়া হবে এবং ২০ হাজার ভূমিহীন পরিবারকে ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হবে। পরবর্তী ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে ১ লাখ ১০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে নিজ জমিতে ঘর করে দেয়া হবে এবং ২০ হাজার ভূমিহীন পরিবারকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হবে।
তিনি বলেন, আশ্রয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ১৯৯৭ সাল থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত তিনটি ফেইজে ১ লাখ ৪০ হাজার পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। বর্তমানে চলমান আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পটির মেয়াদকাল ২০১০-২০১৭ সাল। এ মেয়াদে ৫০ হাজার পরিবার পুনর্বাসন করা হবে। এ পর্যন্ত ৪০ হাজার ভূমিহীন, গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।
মতিয়া চৌধুরী বলেন, ২০১৯ সালের মধ্যে সকল গৃহহীনকে ঘর করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে ২ দশমিক ১০ লাখ পরিবার পুনর্বাসন করা হবে।

এ কারণে প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৯ সাল পর্যন্ত বাড়ানোর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বর্তমান যার সামান্য জমি আছে কিন্তু ঘর করার সামর্থ্য নেই সেই পরিবারকেও তার নিজ জমিতে ১ লাখ টাকা ব্যয়ে ঘর নির্মাণ করে দেয়া হবে। এছাড়া এই কর্মসূচির আওতায় ২০১৯ সালের মধ্যে ১ লাখ ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে নিজ জমিতে ঘর তৈরি করে দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল অসহায় মানুষদের জন্য আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে উপকূলীয় এলাকায় ৫ ইউনিটের পাকা ব্যারাক ও দেশের অন্যান্য এলাকায় ৫ ইউনিটের সেমি পাকা ব্যারাক নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়াও নদী ভাঙ্গনপ্রবণ এলাকায় সহজে স্থানান্তরযোগ্য সিআই সিট ব্যারাক নির্মাণ করা হয়।


মন্তব্য