kalerkantho


যেভাবে গ্রেপ্তার হলেন হত‌্যা মামলার আসামি মেয়র মীরু

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১২:৪৪



যেভাবে গ্রেপ্তার হলেন হত‌্যা মামলার আসামি মেয়র মীরু

অবশেষে গ্রেপ্তার হলেন মেয়র মীরু। ডিবি পুলিশ ও সিরাজগঞ্জ জেলা পুলিশের কাছে তথ্য ছিল, ঢাকার আদাবরের একটি বাসায় আত্মগোপন করে রয়েছেন হালিমুল হক মীরু। তার মোবাইল নম্বর বন্ধ থাকায় বাসাটি শনাক্ত করা সম্ভব ছিল না। তবে আদাবর এলাকায় মীরু রয়েছেন তা নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে তাকে ধরতে নতুন কৌশল নেওয়া হয়। আদাবর থেকে বের হওয়ার প্রতিটি সড়ক ও আশপাশের এলাকায় ছদ্মবেশে পুলিশের সদস্যরা দাঁড়িয়ে থাকেন। প্রতিটি দলে এমন একজনকে রাখা হয়েছিল, যিনি মীরুকে ভালোভাবে চেনেন। রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মোটরসাইকেলে মীরুকে দেখতে পান পুলিশ সদস্যরা। তিনি কোনো ছদ্মবেশ বা মুখোশ ধারণ করেননি। তাৎক্ষণিকভাবে ডিবি ও সিরাজগঞ্জের জেলা পুলিশের যৌথ দল শিমুলের ঘাতককে গ্রেপ্তার করে। চালক ফরিদকে গ্রেপ্তারের পাশাপাশি মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তারের পরপরই তাদের পুলিশের গাড়িতে তোলা হয়।

পুলিশ সুপার মিরাজউদ্দিন আহমেদ এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মীরু জানান, মোটরসাইকেলে রাজধানীর পল্লবীতে একটি বাসায় যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল তাদের। ওই বাসায় একজন আইনজীবীর সঙ্গে তার সাক্ষাতের জন্য সময় নির্ধারণ করা ছিল। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে পূর্বপরিচিত ফরিদের মোটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন তিনি। ফরিদের গ্রামের বাড়ি নওগাঁ। তবে তার পরিচয় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি। আদাবরে মীরু তার এক ভাইয়ের বাসায় ছিলেন। তবে কোন সম্পর্কের ভাই, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

পুলিশ সুপার মিরাজউদ্দিন আহমেদ জানান, রবিবার রাতে বাসা থেকে বের না হলে মীরুকে ধরা সহজ হতো না। তিনি ভেবেছিলেন, মোটরসাইকেলে রওনা হলে তাকে কেউ সন্দেহ করবে না। গ্রেপ্তার এড়াতে মরিয়া মীরু মোবাইল ফোনে যোগাযোগ না করে সশরীরে তাই আইনজীবীর কাছে যাচ্ছিলেন।


মন্তব্য