kalerkantho


সার্চ কমিটির বৈঠক অব্যাহত পরবর্তী বৈঠক সোমবার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২১:১৯



সার্চ কমিটির বৈঠক অব্যাহত পরবর্তী বৈঠক সোমবার

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে নাম প্রস্তাবের লক্ষ্যে ধারাবাহিক বৈঠকের অংশ হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার আবারো বৈঠক করেছে রাষ্ট্রপতি গঠিত সার্চ কমিটি। আগামী সোমবার বিকেল ৫টায় সার্চ কমিটি পরবর্তী বৈঠকে বসবে।
সার্চ কমিটির বৈঠক শেষে সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জের বারান্দায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আবদুল ওয়াদুদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
এর আগে বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জে বৈঠক শুরু হয়ে সন্ধ্যা পৌনে সাতটা পর্যন্ত চলে। আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সার্চ কমিটি সুপ্রিম কোর্টের জাজেস লাউঞ্জে এই বৈঠকে বসে।
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আবদুল ওয়াদুদ বলেন, ‘সার্চ কমিটির কাছে আসা নামগুলো তারা বৈঠকে পর্যালোচনা করছেন, যাচাই-বাছাই করছেন। আশা করছি, ৮ ফেব্রুয়ারির আগেই চূড়ান্ত তালিকা করতে সক্ষম হবে সার্চ কমিটি। ’
তিনি বলেন, ‘আজকের বৈঠকে ২০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের অতীত কর্মকান্ড নিয়ে এবং বিশিষ্ট নাগরিকদের দেয়া পরামর্শ নিয়ে পর্যালোচনা করেছেন কমিটির সদস্যরা। ’ আজকের বৈঠকটি এ কমিটির নিজেদের মধ্যে তৃতীয় বৈঠক ছিল বলে জানান তিনি।
তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন গঠনে পর্যালোচনার প্রয়োজন রয়েছে। বিশিষ্টজনদের মতামতও পর্যালোচনা চলছে। সেখান থেকে সর্বোত্তম ব্যক্তিদের বাছাই করছে সার্চ কমিটি। ’ তিনি আরও বলেন, ‘তবে ২০ জনের বাইরে নতুন কোনও নাম এখনও সার্চ কমিটি সংযুক্ত করেনি। ’
এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সততা, দক্ষতা, দল নিরপেক্ষ ও কার্যক্ষমতার বিষয়গুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে। আর এ ব্যাপারে বিভিন্ন উপায়ে এ তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। ’
তিনি আরও বলেন, ‘বিশিষ্টজনদের পরামর্শ পর্যালোচনা করে তাদের পরামর্শের একটি সারসংক্ষেপ চূড়ান্ত করা হবে। এরপর পর্যালোচনা ও তথ্য সংগ্রহ করে সার্চ কমিটি রাষ্ট্রপতিকে তা দেবেন। ’
আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে সার্চ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, সরকারি কর্মকমিশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক, বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (সিএজি) মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য শিরীণ আখতার।


মন্তব্য