kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে : প্রধানমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:১৩



দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তাঁর সরকার কৃষির সার্বিক উন্নয়নে কৃষিবান্ধব নীতি প্রণয়ন ও সময়োপযোগী বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করায় দেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে।  
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর পদাঙ্ক অনুসরণ করে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে সার, বীজসহ সকল কৃষি উপকরণের মূল্যহ্রাস, কৃষকদের সহজশর্তে ও স্বল্পসুদে ঋণ সুবিধা প্রদান, ১০ টাকায় ব্যাংক একাউন্ট খোলার সুযোগসহ তাঁদের নগদ সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।


তিনি আরো বলেন, তাঁর সরকারের এ সকল পদক্ষেপের ফলে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে।
আগামীকাল বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে আজ দেয়া এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।
দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে খাদ্য এবং কৃষিও বদলাবে’ অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ও অধিক খাদ্য উৎপাদনের ফলে কৃষিজমির উপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। তাই কৃষি উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি দরকার টেকসই কৃষি পরিবেশ নিশ্চিত করা।
বিশ্বে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে খাদ্য চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ক্রমবর্ধমান এ চাহিদা মেটাতে সারাবিশ্বেই খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।  
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার ফসল উৎপাদনের শুরু থেকে ভোক্তা পর্যন্ত খাদ্য পৌঁছে দেয়ার প্রতিটি স্তরেই আধুনিক লাগসই কৃষি প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করেছে।
তিনি বলেন, পরিবর্তিত জলবায়ুর ঝুঁকি মোকাবিলা করে সবার জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে তাঁর সরকার কৃষি গবেষণার উপর অধিক গুরুত্বারোপ করেছে।
শেখ হাসিনা বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর পরই কৃষিখাতের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছিলেন। তাঁর সরকার কৃষকদের কল্যাণে পঁচিশ বিঘা পর্যন্ত জমির মালিকদের খাজনা মওকুফ করে দিয়েছিলেন।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু উন্নত পদ্ধতিতে চাষাবাদ, উন্নত বীজ, সেচ ও অন্যান্য কৃষি উপকরণ সরবরাহ করে কৃষিক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা ও উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে খাদ্যে স্বয়ম্ভরতা অর্জনেরও পদক্ষেপ নিয়েছিলেন।
বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও আগামীকাল ‘বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০১৬’ পালন করা হচ্ছে জেনে প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, কৃষির উপর জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা করে ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ গড়তে তাঁর সরকার সক্ষম হবে।
তিনি বিশ্ব ‘খাদ্য দিবস ২০১৬’র সকল কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন।


মন্তব্য