kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শি জিনপিং এর সফরে কী পেল বাংলাদেশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:২৬



শি জিনপিং এর সফরে কী পেল বাংলাদেশ

চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে দু'দেশের সম্পর্ক নিয়ে যে রকম উচ্ছ্বাস দেখা যাচ্ছে, তা অভূতপূর্ব।
 
প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় আনুষ্ঠানিক বৈঠক শেষে জানিয়েছেন, দু'দেশের সম্পর্ক এক নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করতে যাচ্ছে।
 
চীনা প্রেসিডেন্টের কথায়, বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক এক নতুন ঐতিহাসিক অধ্যায়ের সূচনায়। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বন্ধু হিসেবে পাশে থাকতে চীন প্রস্তুত। তিনি বলেন, ঘনিষ্ঠ অর্থনৈতিক সম্পর্কের পর্যায় থেকে দু'দেশের সম্পর্ক এখন কৌশলগত অংশীদারিত্বের সম্পর্কে উন্নীত হবে।
 
বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, দু'দেশের মধ্যে ২৭টি নানা ধরনের চুক্তি এবং সমঝোতা হয়েছে।
 
বলা হচ্ছে, চীনা প্রেসিডেন্ট যে রকম বিপুল বিনিয়োগ নিয়ে এসেছেন এই সফরের সময় সেটা একটা রেকর্ড।
 
দু'দেশের কর্মকর্তাদের তথ্য অনুযায়ী, চীন বাংলাদেশকে ২৪ বিলিয়ন বা ২ হাজার ৪০০ কোটি ডলারের ঋণ দেবে বিভিন্ন খাতে। এর বেশিরভাগই অবকাঠামো খাতে।
 
আজ শুক্রবার বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকেই শেখ হাসিনা এবং প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং আনুষ্ঠানিকভাবে ছয়টি প্রকল্প উদ্বোধন করেন। এর মধ্যে রয়েছে- চট্টগ্রাম এবং খুলনায় দুটি বড় তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প, যার একেকটির ক্ষমতাই হবে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট।
 
চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে একটি টানেল তৈরির প্রকল্পেও অর্থ সহায়তা দিচ্ছে চীন। এ ছাড়াও একটি সার কারখানা, ন্যাশনাল ডাটা সেন্টার এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে 'কনফুসিয়াস ইনষ্টিটিউট' নামে একটি গবেষণা কেন্দ্র স্থাপিত হচ্ছে চীনা অর্থ সাহায্যে।
 
চীন বাংলাদেশের উপকূলে গভীর সমূদ্রে একটি বন্দর নির্মাণেও আগ্রহী ছিল। কিন্তু বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতের এ নিয়ে আপত্তি আছে। যার ফলে এই প্রকল্পটি নিয়ে কথা-বার্তা আর এগোয়নি বলেই মনে করা হয়।
সূত্র-বিবিসি বাংলা

মন্তব্য