kalerkantho


'বিশিষ্টজনদের হত্যার হুমকি, বায়োমেট্রিক প্রশ্নবিদ্ধ'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ১৮:০৪



'বিশিষ্টজনদের হত্যার হুমকি, বায়োমেট্রিক প্রশ্নবিদ্ধ'

চিহ্নিত সিম থেকে বিশিষ্টজনদের হত্যার হুমকি দেওয়ায় বায়োমেট্রিক পদ্ধতি প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বলে মনে করছেন সুধী সমাজের সদস্যরা। তারা মনে করছেন, বায়োমেট্রিক পদ্ধতি যেহেতু সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে সেহেতু বাংলাদেশের যে কোনো মোবাইল অপারেটরের সিম কে ব্যবহার করছেন কিংবা কার নামে বরাদ্দ তা সহজেই বের করে ফেলা সম্ভব।

কিন্তু সরকার সেটা করছে না। কেন করছে না? এমন প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে।  

আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগের একটি নাগরিক সমাবেশ থেকে এসব প্রশ্ন তোলা হয়েছে।  

নাগরিক সমাবেশে বলা হয়, আনু মুহম্মদ যখন রামপুরা থানায় বসে রয়েছেন তখনও তার মোবাইলে দ্বিতীয় দফায় হত্যার হুমকি আসে। তাহলে দেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কেমন? পরশুদিন তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। অথচ এখন পর্যন্ত হুমকি দাতাকে চিহ্নিত করা যায়নি। কেন? নাকি সরকার চিহ্নিত করতে চায় না? 

আরো বলা হয়, আনু মুহম্মদের হুমকি দাতাকে চাইলে খুব দ্রুত খুঁজে বের করা সম্ভব। সমস্ত প্রযুক্তি সরকারের নিকট রয়েছে। তাহলে সমস্যা কোথায়? একই নম্বর থেকে সাহিত্যিক মইনুল আহসান সাবেরকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। একই সিম, চিহ্নিত সিম অথচ হুমকিদাতারা অদৃশ্য।  

ওই সমাবেশ থেকে আরো বলা হয়, আনু মুহম্মদ তো কারো বাড়া ভাতে ছাই দিচ্ছেন না। তিনি তো সরকার উৎখাতের আন্দোলন করছেন না, তাহলে তার পেছনে লাগার কারণ কি? আনু মুহম্মদ ফুলবাড়ি আন্দোলনে ছিলেন। তখন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীই বলেছিলেন, আনু মুহম্মদ পরিবেশের জন্য কাজ করছেন। তাহলে আজ এই বৈরিতা কেন? 

সমাবেশ থেকে দ্রুত হুমকিদাতাদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারের আহ্বান জানিয়েছে নাগরিক সমাবেশের বক্তারা।  

লেখক, শিল্পী, শিক্ষক, ছাত ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের ব্যানারে ওই নাগরিক সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন শ্রাবণ প্রকাশনীর রবিন আহসান, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রায়হান রাইন, গার্মেন্টস শ্রমিক-কর্মচারি নেত্রী মোশরেফা মিশু, মানবাধিকার কর্মী জাকিয়া, বাকি বিল্লাহ, শিশিরসহ ছাত্র-শিক্ষক, অন্যান্য পেশার মানুষেরা।


মন্তব্য