kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সংসদে গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ

রাজউকে নতুন প্রকল্পে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্লট বরাদ্দ পাবেন এমপিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:২৪



রাজউকে নতুন প্রকল্পে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্লট বরাদ্দ পাবেন এমপিরা

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন জানিয়েছেন, এই মুহুর্তে রাজউকের কোন প্রকল্পে নতুন সংসদ সদস্যদের প্লট বরাদ্দ দেওয়ার সুযোগ নেই। তবে নতুন একটি প্রকল্প গ্রহণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

দুই থেকে আড়াই হাজার একর জমিও দেখা হয়েছে। ওই প্রকল্পের কাজ শুরু হলে নতুন সংসদ সদস্যদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্লট বরাদ্দ দেওয়া হবে। আজ বুধবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ তথ্য জানান।  

এর আগে সম্পূরক প্রশ্নের সুযোগ নিয়ে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য সাবিনা আত্তার তুহীন তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আগের এমপিরা ৭ কাঠা করে প্লট বরাদ্দ পেয়েছেন। আমরা ৫ কাঠাও পেলাম। আমাদের সঙ্গে বৈষম্য করা হচ্ছে।  

তিনি আরো বলেন, মাননীয় মন্ত্রী আমরা আপনাকে ফুলের মালা পরিয়ে বরণ করে নিতে চাই। আপনি বলবেন কি, কবে আমরা প্লট বরাদ্দ পাবো?

জাতীয় পার্টির মো. নুরুল ইসলাম ওমরের লিখিত প্রশ্নের জবাবে গণপূর্তমন্ত্রী জানান, চলমান দশম জাতীয় সংসদের সদস্যদের মধ্যে যাদের ঢাকায় বসবাসের জন্য নিজস্ব জায়গা নেই, তাদের বরাবরে বর্তমানে কোনো প্লট বরাদ্দের সিদ্ধান্ত নেই। তবে পরবর্তীতে রাজউক কোনো প্রকল্প গ্রহণ করলে তাদের মধ্যে প্লট বরাদ্দের বিষয়টি বিধি অনুযায়ী বিবেচনা করা হবে।

আওয়ামী লীগের গাজী ম ম আমজাদ হোসেনের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সরকারি প্লট না পাওয়া সংসদ সদস্যদের সংখ্যা রাজউকে সংরক্ষিত নেই। তবে তাদের অনুকূলে পূর্বাচন নতুন প্রকল্পে ১৫৫টি, সম্প্রসারিত উত্তরা তৃতীয় প্রকল্পে ৮৩টি এবং ঝিলমিল আবাসিক প্রকল্পে ১৯টি প্লট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

সরকারী দলের এম এ মালেকের এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে মোশাররফ হোসেন জানান, রাজধানী ঢাকায় ৬ হাজার ৪৭১টি বাড়ি পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। তিনি আরো জানান, রাষ্ট্রপতির আদেশ ১৬/৭২, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিদ্ধান্ত এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন সময়ে জারিকৃত অফিস আদেশ অনুসারে পরিত্যক্ত বাড়ি শহীদ পরিবার ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের অনুকূলে বরাদ্দ দেওয়া হয়ে থাকে।

সরকারী দলের পিনু খানের প্রশ্নের জবাবে গণপূর্তমন্ত্রী জানান, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃক (রাজউক) বাস্তবায়নাধীন পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পে ভূমি উন্নয়ন ও অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণপূর্বক পূর্ণাঙ্গ শহর হিসেবে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে। বর্তমানে প্রকল্পের উন্নয়নমূলক কাজ প্রায় ৬০ শতাংশ বাস্তবায়ন হয়েছে। প্রকল্পে ২৫ হাজার প্লটের মধ্যে প্রায় ১৩ হাজার প্লট গ্রহীতাদের মধ্যে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য উম্মে রাজিয়া কাজলের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বর্তমান সরকার নিম্ন আয়ের মানুষদের মাঝে স্বল্প খরচে ফ্ল্যাট বরাদ্দের লক্ষ্যে সরকারী অর্থায়নে একটি, জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের নিজস্ব অর্থায়নে মিরপুর ১১ নং সেকশনে আরো একটি ও খুলনার বয়রাতে একটি এবং কুমিল্লা, সিরাজগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জ পৌর এলাকায় বিশ্ব ব্যাংকের সাহায্যপুষ্ট ৫ হাজার ৭০০ ইউনিট বাসস্থান উন্নয়ন গ্রহণ করেছে। বর্তমানে প্রকল্পগুলো অনুমোদনের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


মন্তব্য