kalerkantho


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালনে কর্মসূচি গ্রহণ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:২৪



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালনে কর্মসূচি গ্রহণ

আগামী ১৫ অক্টোবর যথাযোগ্য মর্যাদায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শোক দিবস পালন করার লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় এবং জগন্নাথ হলের পক্ষ থেকে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।
আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য দফতর সংলগ্ন অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ডিজিটাল ভার্চুয়াল কক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শোক দিবস পালন করার লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সব কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

 
বিশ্ববিদ্যালয় নেওয়া এ সব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে তা হলো সকাল ছয়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল হল ও প্রধান প্রধান ভবনে কালো পতাকা উত্তোলন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা অর্ধনমিত রাখা ও কালো ব্যাজ ধারণ, সকাল সাড়ে সাতটায় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে শোক মিছিল সহকারে ছাত্র-শিক্ষক-কর্মকতা-কর্মচারীদের জগন্নাথ হল স্মৃতিসৌধে গমন, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও নিরবতা পালন, সকাল আটটা থেকে নয়টা পর্যন্ত অক্টোবর স্মৃতিভবনস্থ টিভি কক্ষে আলোচনা সভা এবং নয়টা থেকে দশটা পর্যন্ত হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রীস্টানদের প্রার্থনা সভা ও বাদ আছর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে এবং বিভিন্ন হলের মসজিদে নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত।
জগন্নাথ হলের পক্ষ থেকে নেওয়া কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকাল দশটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত জগন্নাথ হল প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় নিহতদের তৈলচিত্র ও তৎসম্পর্কিত দ্রব্যাদি প্রদর্শন ও সকালে জগন্নাথ হল প্রাঙ্গনে রক্তদান কর্মসূচি। শোকদিবসের কর্মসূচির অংশ হিসেবে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় জগন্নাথ হল উপাসনালয়ে ভক্তিমূলক গানের অনুষ্ঠান, শোক সঙ্গীত ও কবিতা আবৃতি অনুষ্ঠান।
এছাড়া, শোক দিবস উপলক্ষে ‘অক্টোবর স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্ট’ এর আয়োজন করা হয়েছে। যা আগামী ৩১ অক্টোবর তারিখের মধ্যে সম্পন্ন হবে।
সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, কোষাধ্যক্ষ ড. মো. কামাল উদ্দীন ও বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রাধ্যক্ষ, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ১৯৮৫ সালের ১৫ অক্টোবর রাতে জগন্নাথ হলে সংঘঠিত মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় যে সকল ছাত্র, কর্মচারী ও অতিথি নিহত হয়েছেন তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য প্রতি বছর এ দিবসটিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়।


মন্তব্য