kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


১৫ বছরে মাদক দ্রব্যের মামলায় অর্ধেক অভিযুক্ত খালাস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:২৩



১৫ বছরে মাদক দ্রব্যের মামলায় অর্ধেক অভিযুক্ত খালাস

বিগত ১৫ বছরের মাদকদ্রব্য বিষয়ক মামলায় অর্ধেক আসামি বেকসুর খালাস পেয়েছে।  
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের ভাষ্যমতে, মামলার দীর্ঘ সূত্রিতার কারনে মামলাগুলো দুর্বল হয়ে যায়।

যার ফলে আসামিরা খালাস পেয়ে যায়। খবর বাসসের।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা বাসসকে বলেন, বিগত ১৫ বছরের পরিসংখ্যানে দেখা যায় খারাসপ্রাপ্ত আসামীর চেয়ে সাজাপ্রাপ্ত আসামীর সংখ্যা অনেক কম। ২০০১ সালের পরবর্তী তথ্যে দেখা যায়, ৩৫ হাজার ১০ জন আসামী এসময় খালাস লাভ করে। অপরদিকে ১৮ হাজার আসামী মাত্র সাজাপ্রাপ্ত হয়।
কর্মকর্তা আরো বলেন, বিচারের দীর্ঘসূত্রিতা, স্বাক্ষীর অভাব, অধিদপ্তরের লোকবলের স¦ল্পতা, মামলা দায়েরের পদ্ধতিগত ত্রুটি, নারী ও শিশুদের মাদক ব্যবসায় সম্পৃক্ত করার কারনে বিচারক অনেক সময় কঠোর পদক্ষেপমূলক সিদ্বান্ত গ্রহণ করতে পারেন না।  
অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০০১ সার থেকে ২০১৫ সালের অক্টোবর পর্যন্ত আদালতে ৩৩ হাজার ৭৪৩টি মামলা নিষ্পত্তি হয়। যার মধ্যে ১৭ হাজার ১৫৩ জন সাজা লাভ করে এবং ১৭ হাজার ৭৪৩ জন খালাস প্রাপ্ত হয়।
অধিদপ্তরের ঢাকা এলাকার অতিরিক্ত পরিচালক গোলাম কিবরিয়া বলেন, মামলার বিচারের দীর্ঘসূত্রিতা ছাড়াও নানাবিধ কারনে অপরাধীদের শাস্তি দেওয়া যায় না।
মামলা দায়ের সংক্রান্ত ত্রুটি, দুর্নীতি ও অনিয়মের কারনে আসামিরা খালাস পেয়ে থাকে।
একটি গবেষণায় জানা যায়, দেশের প্রায় এক লাখ লোক অবৈধ মাদক ব্যবসা ও পাচারের সাথে জড়িত। অপরদিকে গ্রেপ্তার এড়াতে মাদক ব্যবসা ও পাচারের সাথে নারী ও শিশুদেরকে সম্পকৃত করা হয়।
বাংলাদেশ আইসিডিডিআরবি’র তথ্য মতে রাজধানী ঢাকাতে ৭৯ দশমিক ৪ শতাংশ পুরুষ এবং ২০ দশমিক ৬ শতাংশ নারী মাদক গ্রহন করে থাকে। মাদক দ্রব্যে আসক্তদের গড় বয়স ২২ বছর। ছাত্র-ছাত্রীরা মাদকাসক্তের শিকার হয়ে থাকে। এর ফলে তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত হ্রাস পায় ও লেখা পড়ায় বিঘ্ন ঘটে।
সাম্প্রতিক এক প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানা যায়, ৬০ ভাগ পথশিশু তাদের মাত্র ১৩ বছর বয়সে মাদক গ্রহন করে থাকে। এইসকল আসক্ত শিশুদের জন্য কোন বিশেষ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠে নি।
২০০২/২০০৩ সালের বেসলাইন জরিপে জানা যায়, ১১ থেকে ১৪ বছরের বয়সের শিশুরা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। এছাড়া তারা বানিজ্যিক যৌনকর্মী হিসাবে কাজ করে। এইসব শিশুদের মধ্যে শতকরা দুই ভাগ মাদক গ্রহন করে থাকে।  


মন্তব্য