kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আট মাসে ১ হাজার মানব পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:১২



আট মাসে ১ হাজার মানব পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে

 চলতি বছরের জানুয়ারীর পর গত আট মাসে পুলিশ অভিযান চালিয়ে এক হাজার পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশ এ সময় ৫১৭ জন পাচারের কবলে পড়া ভিক্টিমকে উদ্ধার করেছে।

তাদের মধ্যে ২৮৬ জন নারী ও শিশু রয়েছে।
পুলিশ বাহিনী মানব পাচারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে। পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ তথ্য জানান।
তিনি জানান ‘মানব পাচারকারীদের গ্রেপ্তারে জাল বিছানো হয়েছে যাতে করে কেউ বেড়িয়ে যেতে না পারে। এর ফলে চলতি বছরের জানুয়ারী-আগস্ট পর্যন্ত বিগত আট মাসে পুলিশ ৯৫১ মানব পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে। ’
আট মাসে ৫১৭ জনকে পাচারের অভিযোগে মোট ৪৮৩টি মামলা দায়ের হয়েছে। পাচারের আক্রান্তদের মধ্যে ১৮৬ জন নারী ও একশ’জন শিশু।
গ্রেপ্তারকৃত পাচারকারীদের মধ্যে ইতিমধ্যে তিনজনের বিরুদ্ধে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
ইউনিসেফ বাংলাদেশ অফিসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রতি মাসে দেশ থেকে ৪শ’জন নারী ও শিশু পাচারের শিকার হয়ে থাকে।
ইউনিসেফ-এর অপর এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিগত এক দশকে বাংলাদেশ থেকে আনুমানিক ৩ লাখ নারী ও শিশু পাচার হয়ে ভারতে গেছে। যাদের বয়স ১২ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে।
বাংলাদেশ থেকে মানব পাচারের মূল কারণসমূহের মধ্যে রয়েছে দারিদ্র্যতা, লিঙ্গ বৈষম্য, সামাজিক অবহেলা, সচেতনতার অভাব, অশিক্ষা ও সুশাসনের অভাব।
বাংলাদেশ হলো মানব পাচারের কেন্দ্র- যার সাথে মধ্যপ্রাচ্যের একটি যোগসূত্র রয়েছে। পচারকারীরা ঢাকা থেকে ভারতের মুম্বাই, পাকিস্তানের করাচি ও মধ্যপ্রাচ্যের দুবাই রুট ব্যবহার করে থাকে।
বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ১৬টি জেলার ২০টি ট্রানজিট পয়েন্ট ব্যবহার করে ভারতে মানব পাচার করা হয়।
সম্প্রতি নৌ-রুটের নতুন একটি ট্রানজিট পয়েন্ট আবিষ্কার করা হয়েছে । এই নৌ-রুটে বাংলাদেশ থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে মানব পাচার করা হয়ে থাকে।


মন্তব্য