kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে ব্রিটিশ রাজনীতিবিদদের সহায়তার আশ্বাস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৬



বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে ব্রিটিশ রাজনীতিবিদদের সহায়তার আশ্বাস

বাংলাদেশের শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন, নিরাপত্তা, সেবা, প্রকৌশলী, আইটি এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে ব্যাপক উন্নয়নে সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দিয়েছেন ব্রিটিশ নীতিনির্ধারক ও রাজনীতিবিদেরা ।  
আজ এখানে প্রাপ্ত এক বার্তায় বলা হয়, নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে যোগদান শেষে ঢাকায় ফেরার পথে লন্ডনে যাত্রাবিরতিকালে ব্রিটিশ নীতিনির্ধারক ও রাজনীতিবিদদের সংঘে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠককালে তারা এ আশ্বাস দেন।

 
বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি সম্পর্কে তাদেরকে অবহিত করেন। তিনি দেশের সাবির্ক উন্নয়নের জন্য বর্তমান সরকার গৃহীত বিভিন্ন অবকাঠামো প্রকল্প সম্পর্কে তাদেরকে অবহিত করেন।  
বৈঠকে ব্রিটিশ রাজনীতিবিদরা বলেন, শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন, নিরাপত্তা, সেবা, প্রকৌশল এবং আইটিসহ দু’দেশে অনেক ক্ষেত্র রয়েছে, যেখানে ব্যাপক সহযোগিতার মাধ্যমে দু’টি দেশই লাভবান হতে পারে।  
বৈঠকে বাংলাদেশের ৭ম পঞ্চ বাষির্কী পরিকল্পনায় সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রকল্পগুলোতে উন্নয়ন সহায়তা নিশ্চিত করার বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হয়।  
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একটি সার্থান্বেষী মহল বাংলাদেশের গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়া এবং দেশের বর্তমান আর্থ সামাজিক অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত করতে সক্রিয় রয়েছে।  
তিনি চরমপন্থা এবং সন্ত্রাসবাদ দমনে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির পুর্নরুল্লেখ করে বলেন, এ সকল দুর্বৃত্ত আর্ন্তজাতিক মহলের দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা করছে।  
বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে লর্ড বিলিমোরিয়া, আর্ন্তজাতিক স্টুডেন্ট বিষয়ক ইউকে কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট লর্ড শেইখ এবং বাংলাদেশ বিষয়ক সর্বদলীয় পার্লামেন্টারি গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান মার্ক ফিল্ড এমপি, এপিপিজি ব্রিটিশ কারি ইন্ডষ্ট্রির চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ বিষয়ক এপিপিজি’র ভাইস চেয়ারম্যান পল কুলে এমপি, ব্রিটিশ হিন্দুস বিষয়ক এপিপিজি’র চেয়ারম্যান বব ব্লাকম্যান এমপি এবং ব্রিটিশ ট্রান্সপোর্ট পলিসি অথরিটির চেয়ারম্যান ইসথার ম্যাবভে উপস্থিত ছিলেন।  
এ ছাড়া বৈঠকে লন্ডনে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার খন্দোকার এম. তালাহ উপস্থিত ছিলেন।  


মন্তব্য