kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


প্রধানমন্ত্রীকে ফেসবুকে হত্যার হুমকি : ঢাকা ও টাঙ্গাইলে পৃথক মামলা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:৩৯



প্রধানমন্ত্রীকে ফেসবুকে হত্যার হুমকি : ঢাকা ও টাঙ্গাইলে পৃথক মামলা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে হত্যা হুমকির অভিযোগে বিএনপি’র বহিষ্কৃত নেতা তানভীর আহমেদ সিদ্দিকীর ছেলে ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে ঢাকা ও টাঙ্গাইলে পৃথক মামলা করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা ইসমাইল মো. গোলাম রসুল বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।


ঢাকা মহানগর হাকিম মো.সারাফুজ্জামান আনসারী বাদীর জবানবন্দি আমলে নিয়ে মতিঝিল থানার ওসিকে আগামি ৭ নভেম্বরের মধ্যে তদন্তপূর্বক এ ব্যাপারে প্রতিবেদন দেয়ার আদেশ দেন।  
মামলার অভিযোগে বলা হয়, গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে ইরাদ সিদ্দিকী তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন, ‘শেখ হাসিনাকে গুপ্তহত্যা করা সম্ভব নয়। কারণ, শেখ হাসিনার চারিদিকে ভারতের বিশেষ নিরাপত্তার চাদর রয়েছে। ভারতীয়রা সরাসরি শেখ হাসিনার নিরাপত্তার বিধান করছে। শেখ হাসিনা বাংলাদেশে ভারতের স্বার্থেরই প্রতিনিধিত্ব করছেন। শেখ হাসিনাকে গুপ্তহত্যা ছাড়া বাংলাদেশে ভারসাম্য ও গণতন্ত্র ফেরানো সম্ভব নয়। ’
একই রাতে আরেকটি স্ট্যাটাসে তিনি একটি ছবি পোস্ট করেন। সেখানে একটি ঘোড়ার ছবি পোস্ট দিয়ে বঙ্গবন্ধুর পিতাকে বলিয়াদির জমিদারের ঘোড়ার ভৃত্য বলে উল্লেখ করেন।
এ ছাড়া গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে আরেকটি স্ট্যাটাসে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবির নিচে মধ্য অঙ্গুলি প্রদর্শন করে ট্রল করে পোস্ট দেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘ভাস্কর্য হাজারো শর্বের প্রতিনিধিত্ব করে। ’
আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির আবেদন করা হয়েছে।
এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটুক্তির অভিযোগে টাঙ্গাইলে আরেকটি মামলা করা হয়।  
বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের বাদি হয়ে চৌধুরী ইরাদ আহম্মেদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে এ মামলা করেন।
এডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের জানান, সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চৌধুরী ইরাদ আহম্মেদ সিদ্দিকী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেয়। একই সাথে তিনি মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়েও কটাক্ষ করেন।  
আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ-আল মাসুম মামলাটি আমলে নিয়ে টাঙ্গাইল সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে তা এফআইআর হিসেবে রেকর্ড করার নির্দেশ দেন।  


মন্তব্য