kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রাতে হান্নান শাহর বাসায় যাবেন খালেদা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:৩১



রাতে হান্নান শাহর বাসায় যাবেন খালেদা

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহর মরদেহ আজ বুধবার সন্ধ্যায় দেশে পৌঁছাবে। বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইনের একটি ফ্লাইটে ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছাবে তার মরদেহ।

বিমানবন্দর থেকে মরদেহ নেওয়া হবে মহাখালী ডিওএইচএসর বাসায়। রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়া মহাখালীর বাসায় হান্নান শাহর মরদেহ দেখতে যাবেন। তিনি হান্নান শাহর শোক সন্তপ্ত পরিবারের পাশে থেকে সমবেদনা জানাবেন। বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেসউইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান এসব তথ্য জানান। এদিকে রাতে মরদেহ বাসা থেকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের মরচুয়ারিতে রাখা হবে।

এরপর বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় মহাখালী ডিওএইচএস জামে মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। ওইদিন সকাল ১১টায় জাতীয় সংসদের ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় মরহুমের তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। বাদ জোহর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে চতুর্থ জানাজা। এরপর হান্নান শাহর মরদেহ রাখা হবে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের মরচ্যুয়ারিতে। সেখান থেকে শুক্রবার সকালে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে গাজীপুরে। সকাল ১০টায় স্থানীয় রাজবাড়ি কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত হবে পঞ্চম জানাজা।

এরপর সেখান থেকে মরহুমের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে গাজীপুরের কাপাসিয়ায়। সেখান ষষ্ঠ জানাজা শেষে পারিবারিক করবস্থানে দাফন করা হবে। এর আগে মঙ্গলবার বাদ এশা সিঙ্গাপুরের ছেরাঙ্গন রোডের অ্যাঙ্গলিয়া জামে মসজিদে হান্নান শাহর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গলবার ভোরে সিঙ্গাপুরের র‌্যাফেলস্ হার্ট সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান হান্নান শাহ। তিনি দীর্ঘদিন হৃদরোগে ভুগছিলেন।

সম্প্রতি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি হন হান্নান শাহ। অবস্থার অবনতি হলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে সিঙ্গাপুর পাঠানো হয়। সেখানে হান্নান শাহকে ভর্তি করা হয় র‌্যাফেলস্ হার্ট সেন্টারে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর দুপুরে ওই সেন্টারে চিকিৎসক ডা. অ্যালভিন এনজির নেতৃত্বে একদল চিকিৎসক হান্নান শাহর হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচার করে চারটি রিং বসায়। বিকেলে করানো হয় এনজিওগ্রাম। অবস্থার উন্নতি হওয়ায় খুলে দেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টও। কিন্তু এর ১৩ দিনের মাথায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি।

 


মন্তব্য