kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন হচ্ছে কল্যাণপুরের ৯ জঙ্গির মরদেহ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১২:৪৬



বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন হচ্ছে কল্যাণপুরের ৯ জঙ্গির মরদেহ

রাজধানীর কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অপারেশন স্ট্রম ২৬ সিক্স এ নিহত ৯ জঙ্গির মরদেহ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ও ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটি) বিভাগের নির্দেশে তাদের মরদেহ নিয়ে দাফন করবে আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলাম।

মরদেহ নিতে আজ বুধবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে উপস্থিত হয়েছে আঞ্জুমান কর্তৃপক্ষ।

ঢামেক হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ বলেন, পুলিশের কাছ থেকে মরদেহ গ্রহণের নির্দেশ পেয়েছে আঞ্জুমান। আজই কল্যাণপুরের ৯ জঙ্গির মরদেহ তাদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। ঢামেক হাসপাতাল সূত্র জানায়, বুধবার জুরাইন কবরস্থানে তাদের মরদেহ দাফন করা হতে পারে।

গত ২৬ জুলাই ভোরে কল্যাণপুরে জাহাজ বিল্ডিং নামে পরিচিত তাজ মঞ্জিলের জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে ৯ জঙ্গি নিহত হন। নিহতদের মধ্যে ৮ জনের আঙ্গুলের ছাপ নিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বিভাগের মাধ্যমে পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে তাদের পরিবার দীর্ঘদিন ধরে মরদেহ না নেওয়ায় বেওয়ারিশ বা অজ্ঞাত হিসেবেই দাফন করা হচ্ছে জঙ্গিদের মরদেহ।

নিহত জঙ্গিরা হলেন- দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার বল্লভপুরের সোহরাব আলীর ছেলে আব্দুল্লাহ, টাঙ্গাইলের মধুপুরের নূরুল ইসলামের ছেলে আবু হাকিম নাইম, ঢাকার ধানমণ্ডির রবিউল হকের ছেলে তাজ-উল-হক রাশিক, সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ওমরপুরের নাসির উদ্দিন সরদারের ছেলে মতিয়ার রহমান, ঢাকার গুলশানের সাইফুজ্জামান খানের ছেলে আকিফুজ্জামান খান, বারিধারা এলাকার তৌহিদ রউফের ছেলে সাজাদ রউফ অর্ক, নোয়াখালীর সুধারামের মাইজদী এলাকার আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে জোবায়ের হোসেন, রংপুরের পীরগাছা উপজেলার পুরশুরা এলাকার শাহজাহান কবিরের ছেলে রায়হান কবির ওরফে তারেক ওরফে ফারুক।

 


মন্তব্য