kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৯:৩৩



আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন বলেছেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।  
তিনি আজ সংসদে ওয়ার্কার্স পার্টির সদস্য বেগম হাজেরা খাতুনের এক প্রশ্নের জবাবে আরো বলেন, ‘আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ রোধে, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধান এবং সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার মাধ্যমে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, জনগণের মৌলিক ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ, নাশকতা ও সহিংসতার সাথে সংশ্লিষ্টদের আইনের আওতায় আনতে ও তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশসহ সকল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাসমূহকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, জনগণের জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তা বিধান, শান্তিপূর্ণ ও স্বাভাবিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখার লক্ষ্যে পুলিশ ও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পারস্পরিক সমন্বয়ের মাধ্যমে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা, জনসাধারণের সম্পদ ও জীবনের নিরাপত্তাসহ শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে এবং সন্ত্রাসী কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ পুলিশ বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।
তিনি বলেন, সকল প্রকার সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, ওয়ারেন্টভুক্ত ও সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ নিয়মিত মামলার আসামি গ্রেপ্তার, অবৈধ অস্ত্র ও বিস্ফোরক এবং মাদকদ্রব্যসহ সকল ধরনের অবৈধ মালামাল উদ্ধারকল্পে পুলিশের নিয়মিত ও বিশেষ অভিযান এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত রয়েছে।
আসাদুজ্জামান খাঁন বলেন, সকল প্রকার নাশকতা, ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ ও সহিংসতা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা জোরদার ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়মিতভাবে আলোচনা সভা-সমাবেশের আয়োজন করা হচ্ছে। এছাড়া পুলিশ ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিরলসভাবে দায়িত্ব পালন করে সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী হামলা সংক্রান্তে মামলার রহস্য উদঘাটনে সফলতার পরিচয় দিয়েছে।
তিনি বলেন, সন্ত্রাসী হামলা, অগ্নিসংযোগ, বোমা হামলা, সহিংসতা ও নাশকতার ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণসহ মামলাসমূহ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্তপূর্বক আদালতে বিচার প্রক্রিয়ার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কূটনৈতিক ও বিদেশি নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য স্থানীয় পুলিশ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ইতোপূর্বে জঙ্গি, সন্ত্রাসী, নাশকতামূলক, ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে এমন ব্যক্তিদের কর্মকান্ড ও গতিবিধি সম্পর্কে গোয়েন্দা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। জঙ্গি ও সন্ত্রাসীসহ সকল অপরাধীদের কর্মকান্ড রোধে তাদের অর্থের যোগানদাতা ও অর্থের উৎস সন্ধান করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।
তিনি বলেন, রাজধানীতে প্রতিটি থানা এলাকায় নিয়মিত উঠান বৈঠক করা হচ্ছে এবং থানা এলাকার বাড়িওয়ালা, ভাড়াটিয়াদের নাম ঠিকানাসহ তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। সন্ত্রাসী ও জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার লক্ষ্যে গঠিত স্পেশাল টাস্ক গ্রুপের মাধ্যমে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


মন্তব্য