kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


'সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় নদীর প্রাণ ফিরিয়ে দেয়া হবে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:২৮



'সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় নদীর প্রাণ ফিরিয়ে দেয়া হবে'

নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, নদী দখল ও দূষণরোধে সরকার অত্যন্ত আন্তরিক। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় নদীর প্রাণ ফিরিয়ে দেয়া হবে।


নৌপরিবহন মন্ত্রী আজ রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।  
জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন এবং বাংলাদেশ নদী পরিব্রাজক দল যৌথভাবে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।  
শাজাহান খান বলেন, নদীর নাব্যতা রক্ষার্থে ‘টাস্কফোর্স’ এবং নদীর বহুমাত্রিক ব্যবহার নিশ্চিত করতে ‘জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন’ গঠন করা হয়েছে। নদীর দখল ও দূষণমুক্ত করতে নৌবাহিনী প্রধানের নেতৃত্বে একটি স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করা হয়েছে।  
মন্ত্রী বলেন, নদীকে রক্ষা করতে আমরা চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছি। যতই প্রভাবশালী হোক না কেন কাউকে নদীর জায়গা দখল করতে দেয়া হবেনা। জনগণকে সাথে নিয়ে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা হবে। তিনি বলেন, নদী দখল ও দূষণকারীরা বর্তমান যুগের রাজাকার।  
শাজাহান খান বলেন, বাংলাদেশে ২৪ হাজার কিলোমিটার নৌপথ ছিল। এখন আছে ৩ হাজার ৬০০ কিলোমিটার যা বর্ষায় এসে দাঁড়ায় ছয় হাজার কিলোমিটারে। নদীর প্রতি অযত্ন ও অবহেলার ফলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, নদী খননের জন্য দু’শতাধিক ড্রেজার প্রয়োজন। সরকারের গত মেয়াদে বিআইডব্লিউটিএ ১৪টি এবং পানি উন্নয়ন বোর্ড ১৫টি ড্রেজার সংগ্রহ করেছে। বর্তমান মেয়াদে বিআইডব্লিউটিএ’র জন্য ২০টি এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের জন্য ১৫টি ড্রেজার সংগ্রহ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।  
মন্ত্রী বলেন, নদীর জায়গা যাতে পুনরায় দখল হতে না পারে সেজন্য সীমানা পিলার বসানো হয়েছে। ঢাকার চারপাশে ২০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে, আরো ৫০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হবে। তিনি বলেন, শ্যামপুরে নদীর তীরে একটি ‘ইকোপার্ক’ নির্মাণ করা হয়েছে। কাঁচপুর ও আশুলিয়াতে দু’টি ইকোপার্ক নির্মাণ করা হবে।  
বাংলাদেশ নদী পরিব্রাজক দলের সভাপতি মোঃ মনির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান মোঃ আতাহারুল ইসলাম, নদী বিশেষজ্ঞ মোঃ মঞ্জুরুল কিবরীয়া।  
দিবসটি উপললক্ষে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।  
মন্ত্রী পরে রচনা প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।


মন্তব্য