kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির ৯ দফা দাবি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:৩২



সরকারি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির ৯ দফা দাবি

মানসম্মত বিশ্বমানের প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ২০১৮ সালের মধ্যে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত আট বছর মেয়াদী বৈতনিক প্রাথমিক শিক্ষা কার্যকর করাসহ ৯ দফা দাবি করেছে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।
শুক্রবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ‘মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ দাবি জানায় সমিতির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।


সমিতির সভাপতি ওয়েছ আহমদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে লিখিত সভায় বক্তব্য পাঠ করেন সমিতির মহাসম্পাদক আমিনুল ইসলাম চৌধুরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মো. আবুল হোসেন, আক্কাছ আলী, সহসভাপতি মনসুর আলী ওয়ান, আইযুব উল্যাহ ভূঁইয়া, সুরুজ আলী ঠাকুর, মো, নাসির উদ্দিন, আবুল কালাম আজাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মমিনুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক নূরুল ইসলাম, এবং দফতর সম্পাদক মো. মোশাররফ হোসেন ও সভার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।
তাদের দাবিগুলোর বিষয়ে সভায় জানানো হয়, মেধা ও যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিকে সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিতে হবে এবং বিভাগীয় উচ্চপদে উক্ত সহকারী শিক্ষকদের মধ্য থেকে যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে শতভাগ পদন্নতির ব্যবস্থা করা, একই পাঠ্যপুস্তক ও কারিকুলামের আওতায় একীভূত প্রাথমিক শিক্ষা চালু করা, দীর্ঘদিন যাবৎ পদন্নতিবঞ্চিত সিনিয়র সহকারী শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদ সষ্টি করা, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সকল বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, কম্পউটার/ল্যাপটপ সরবরাহ, শিক্ষকদের বিদ্যালয় বহির্ভূত কাজ না দেওয়া, শিক্ষকদের প্রাপ্য পাওনাদি যথাসময়ে পরিশোধ করা, বিদ্যালয়ে অফিস সহকারী নিয়োগদান এবং প্রাথমিক শিক্ষায় বাস্তব সিদ্ধান্তের স্বার্থে আই.এল.ও ও ইউনেস্কা সনদ অনুযায়ী শিক্ষক প্রতিনিধির অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।
বক্তাদের ভাষ্য দেশের উন্নয়ন তখনই দৃষ্টি নন্দন হবে যখন দেশের শিক্ষার মান বিশেষ করে প্রাথমিক পর্যায়ে শিক্ষাগ্রহণ ও পাঠদানের সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি হবে।


মন্তব্য