kalerkantho

রবিবার । ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ৭ ফাল্গুন ১৪২৩। ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আট মাস বেতন বন্ধ

ক্ষুব্ধ কর্মচারীর ঘুষিতে নাক ফাটলো সংসদের সিনিয়র সহকারী সচিবের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:৩৮



ক্ষুব্ধ কর্মচারীর ঘুষিতে নাক ফাটলো সংসদের সিনিয়র সহকারী সচিবের

ক্ষুব্ধ কর্মচারী মো. জাহিদুল ইসলামের ঘুষির আঘাতে রক্তাক্ত হয়েছেন জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব সেকান্দার হায়াৎ রিজভী। আট মাস ধরে নিজের বেতন বন্ধ থাকায় ক্ষুব্ধ জাহিদুল কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ওই কর্মকর্তার মুখে আঘাত করেন। এতে তার নাক-মুখ ফেটে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে সংসদ মেডিক্যাল সেন্টারে নেওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে বাসায় পাঠানো হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আজ বুধবার সকালে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপের দপ্তরে এ ঘটনাটি ঘটে। জাহিদুল বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ তাজুল ইসলামের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (পএি) হিসেবে আট মাস আগে যোগ দিয়েছেন। সে সড়ক ও জনপথ বিভাগের তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী। প্রিভিলেজ ষ্টাফ হিসেবে যোগ দেওয়া এই কর্মচারীর বদলি সংক্রান্ত জটিলতার কারণে গত ৮ মাস তার বেতন বন্ধ আছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির কাজে ওই কর্মকর্তা চিফ হুইপের দপ্তরে আসলে বেতন বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি শুরু হয়।

আহত কর্মকর্তা রিজভী সাংবাদিকদের জানান, জাহিদুল তার নিয়োগ সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে কথা বলতে যায়। ওই সময় সে তার এলাকার একজনের বদলির জন্য তদবিরের প্রস্তাব দেয়। আমি তাকে বলি, তদবির করতে পারব না। আর তার নিয়োগ সংক্রান্ত জটিলতার বিষয়টি সমাধান করবেন বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে জাহিদুল গলা চেপে ধরে চোখের ওপর ঘুষি মারে।

এদিকে সারাদিনই সংসদ ভবন এলাকায় এ বিষয়টি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলো। দুপুরে গিয়ে হামলাকারী জাহিদুলকে তার কর্মস্থলে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনার পর তাকে আটক করে সংসদ ভবনের নিরাপত্তা রক্ষীরা। পরে স্পিকারের নির্দেশে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

জাহিদুলের সহকর্মীরা জানান, ওই কর্মকর্তার কারণে তার বেতন ছাড়া হচ্ছে না। যে কারণে সে ক্ষুব্ধ হয়ে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে।


মন্তব্য