kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


২০৩০ সাল নাগাদ গোট প্লেগ নির্মূলের পরিকল্পনা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:১৮



২০৩০ সাল নাগাদ গোট প্লেগ নির্মূলের পরিকল্পনা

২০৩০ সাল নাগাদ গোট প্লেগ নির্মূলের পরিকল্পনা করছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর। এ জন্য তারা একটি প্রকল্প প্রণয়ন করছে।

সারাদেশে ছাগলের মৃত্যুর প্রধান কারণ এই গোট প্লেগ বা পেস্ট ডে পেটিটস রুমিন্যান্টস (পিপিআর)। এটি একটি ভাইরাস রোগ।
প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. অজয় কুমার রায় বাসসকে জানান, ‘মারাত্মক রোগ থেকে ছাগল রক্ষার জন্য আমরা ২০৩০ সাল নাগাদ পিপিআর নির্মূল করতে একটি প্রকল্প তৈরি করছি। ’
তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে সরকার তার নিজস্ব উৎস থেকে এ প্রকল্পে অর্থায়ন করবে।
অধিদফতরের চিফ প্ল্যানার এ্যান্ড লাইভস্টক ইকোনমিস্ট ড. রুহুল আমিন হাওলাদার জানান, আগামী দ্ইু মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রকল্প প্রস্তাব জমা দেয়া হবে। তবে পুরোদমে প্রকল্প চালু হতে সময় লাগবে প্রায় দুই বছর।
দেশে প্রাণিসম্পদের সংখ্যা প্রায় ৫ দশমিক ৯০ কোটি। এর মধ্যে ছাগল ও ভেড়ার সংখ্যা প্রায় ৩ দশমিক ৩৫ কোটি।
প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রিন্সিপাল সায়েন্টিফিক অফিসার ড. হাসান ইমাম জানান, ছাগল ও ভেড়া চিকিৎসার জন্য কমপক্ষে ৩ কোটি ডোজ পিপিআর ভ্যাকসিন দরকার। কিন্তু বর্তমান সামর্থ হলো প্রায় ৫০ লাখ।
১৯৪২ সালে পশ্চিম আফ্রিকার দেশ আইভরি কোস্টে প্রথম পিপিআর শনাক্ত হয়। এটি এখন বাংলাদেশসহ অনেক দেশের ছাগল-ভেড়ার জন্য বড় হুমকি।


মন্তব্য