kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্বস্তিতে ঢাকায় ফিরছে মানুষ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:০৫



স্বস্তিতে ঢাকায় ফিরছে মানুষ

স্বজনদের সঙ্গে ঈদ উদ্‌যাপনের পর বড় ধরনের যানজট ছাড়াই রাজধানীতে ফিরছে মানুষ। গাবতলী, কল্যাণপুর ও শ্যামলীর কাউন্টারগুলোতে এ জন্য স্বস্তি প্রকাশ করতে দেখা গেছে তাদের।

আজ শনিবার সকালে গাবতলী বাস টার্মিনাল এবং কল্যাণপুর-শ্যামলীর কাউন্টারগুলোতে গিয়ে দেখা গেছে, হানিফ, শ্যামলী, এস আলম, সোহাগ, কেয়া, হিমেল, ডিপজল পরিবহন ও লোকাল পরিবহনের বাসগুলো দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে একের পর এক কাউন্টারে আসছে। হানিফ পরিবহনে ঢাকায় আসা এক যাত্রী জানান, ঈদের আনন্দ শেষে শুক্রবার রাত ১২টায় ঠাকুরগাঁও থেকে রওনা দেন তিনি। যমুনা সেতুর পর কোনো রকম জ্যাম ছাড়াই সকাল ১০টায় ঢাকায় এসে পৌঁছেন।

অপর এক যাত্রী জানান, কোনোরকম জ্যাম ছাড়াই শ্যামলী পরিবহনে মাত্র সাড়ে ৪ ঘণ্টায় ঢাকা পৌঁছেছেন। হানিফ পরিবহনের সুপারভাইজার বলেন, রাত ১১টা ৪০ মিনিটে পঞ্চগড় থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে বাসটি। বগুড়া ও সিরাজগঞ্জের মাঝামাঝি চান্দাইলে কিছুক্ষণ জ্যামে থাকায় ১০ ঘণ্টায় ঢাকায় আসতে হয়েছে। তবে ঈদের আগের দিনগুলোতে সিরাজগঞ্জ থেকে গাবতলী পর্যন্ত আসতেই ৮ থেকে ১০ ঘণ্টা সময় লেগেছে। সে তুলনায় অনেকটা আরামেই চলে এসেছি।

শুকতারা পরিবহনে মানিকগঞ্জ থেকে গাবতলীতে আসা শাহজাদপুরের বাসিন্দা জানান, কোনোরকম জ্যাম ছাড়াই মাত্র ২ ঘণ্টায় গাবতলীতে এসেছেন। বাড়ির সবাইকে নিয়ে ঈদ উদযাপনের পর কোনো ঝামেলা ছাড়াই ঢাকায় পৌঁছাতে পেরে অনেক ভালো লাগছে। কেয়া, হিমেল ও সৈকত পরিবহনের যাত্রীরাও অল্প সময়ে ঢাকা আসতে পেরে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এদিকে দেশের বিভিন্ন স্থানের উদ্দেশে গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাওয়া বাসগুলোতে যাত্রী কমে গেছে। এখন যারা গাবতলী থেকে বাসে যাত্রা করছেন তাদের বেশির ভাগই খুব জরুরি প্রয়োজনে যাচ্ছেন। বাকিরা ঢাকায় ঈদ উদযাপন শেষে কর্মস্থলে ফিরছেন।

 


মন্তব্য