kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৫২



যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত

মহান ত্যাগের মহিমায় উদ্ভসিত হয়ে মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারাদেশে আজ মঙ্গলবার পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে।

ঈদের জামাতে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, শান্তি কামনা করে দোয়াসহ জঙ্গিবাদ বিরোধী লড়াইয়ে সবাইকে সামিল হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

তবে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে এবার ঈদের জামাতে মুসল্লিদের উপস্থিতি কম ছিল।

মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে দেশের মুসলিম সম্প্রদায় তাদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা উদযাপন করছে। ঘরে ঘরে ত্যাগের আনন্দে মহিমান্বিত হয়েছে মন।

সকালে ঈদের দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায়ের জন্য সারাদেশের মুসল্লিরা স্থানীয় ঈদগাহ বা মসজিদে সমবেত হন। ধনী-গরিবের ভেদাভেদ ভুলে সবাই এক কাতারে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে নিজের পাপমোচন এবং পরিবার-পরিজন, দেশ ও মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া চেয়ে আল্লাহর দরবারে মোনাজাত করেন।

এরপর হযরত ইব্রাহিম (আ.)-এর মহান আত্মত্যাগের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে নিজের ভেতরের পশুত্বকে পরিহার ও আল্লাহর অনুগ্রহ লাভের আশায় পশু কোরবানি করেন তাঁরা।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল, কারাগার, ও সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।

কিশোরগঞ্জে মুষলধারে বৃষ্টির মধ্যে শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে ঈদুল আজহার ১৮৯তম জামাত শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে জামাতে মুসল্লিদের উপস্থিতি কম ছিল। জামাতে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, শান্তি কামনা কওে দোয়াসহ জঙ্গিবাদ বিরোধী লড়াইয়ে সবাইকে সামিল হওয়ার আহ্বান জানানো হয়। জামাতে ইমামতি করেন মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ।  

কুষ্টিয়ায় কোর্টপাড়াস্থ কেন্দ্রীয় ঈদগাহসহ একসাথে ১৩৫টি স্থানে পবিত্র ঈদুল আজহা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা গোলাপ নগর মাহারাজপুর ঈদগাহ ময়দানে জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং কেন্দ্রীয় ঈদগাহে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি ঈদের নামাজ আদায় করেন। এ সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেন, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতাসহ হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলীগন নামাজে শরীক হন।

খুলনায় সকাল ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত, সকাল ৯টায় দ্বিতীয় জামাত, সকাল ১০টায় তৃতীয় জামাত টাউন জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়।
আবহাওয়া খারাপ থাকায় এবারও সার্কিট হাউজ ময়দানে জামাত অনুষ্ঠিত হয়নি। ঈদের নামাজে ইমামতি করেন খুলনা জেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি মাওলানা মোহাম্মদ সালেহ আহমেদ। স্থানীয় সাংসদ মিজানুর রহমান, জেলা পরিষদের প্রশাসক শেখ হারুনুর রশিদসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ জামাতে অংশ নেন। পরে দেশ ও জাতির শান্তিকামনা করে মোনাজাত করা হয়।  

শরীয়তপুর জেলায় প্রায় ২শ’ ৫৫টি ছোট বড় ঈদগাহে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলার প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭ টায় শরীয়তপুর পৌর ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

খাগড়াছড়ির পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি এবং দেশের কল্যাণ কামনার মধ্য দিয়ে সারাদেশের মতো পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি জেলায়ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদুল আজহা পালিত হয়েছে। সকাল ৮টায় কেন্দ্রীয় ঈদগাঁ মাঠে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়।  
নড়াইল থেকে বাসস সংবাদদাতা জানান, ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার মধ্যদিয়ে নড়াইলে ঈদুল আজহা পালিত হয়েছে। নড়াইলে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ৭ টায়। ঈদের প্রধান জামাতে অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

জয়পুরহাটে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে জয়পুরহাট জেলায় ৩শ’ ১৩টি ঈদগাহে ঈদুল আজহার নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। জয়পুরহাটে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে। নামাজ পরিচালনা করেন মাওলানা আব্দুল মতিন।  

এছাড়াও চট্টগ্রাম, রাজশাহী, রংপুর, মাগুড়া, মানিকগঞ্জ, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, কুমিল্লা, নোয়াখালী, দিনাজপুর, পটুয়াখালি, মুন্সিগঞ্জ, খুলনা, বাগেরহাট, বগুড়া, নাটোর, সিলেট, জামালপুর, পঞ্চগড়, রাজবাড়ী, টাঙ্গাইল, নারায়নগঞ্জ, ফেনী, মাগুড়া, যশোরসহ সারাদেশের জেলা উপজেলায় যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে।


মন্তব্য