kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এবার তরুণীসহ ধরা পড়ে গণপিটুনি খেলেন সেই এমপি পুত্র

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:১৫



এবার তরুণীসহ ধরা পড়ে গণপিটুনি খেলেন সেই এমপি পুত্র

এবার তরুণীসহ ধরা পড়ে গণপিটুনি খেলেন সংরক্ষিত আসনের নারী সংসদ সদস্য (এমপি) মিসেস রিফাত আমিনের ছেলে রাশেদ সরোয়ার রুমন।  
এর আগে রবিবার রাতে এক আওয়ামী লীগ নেতাসহ চারজনকে মারধর করে সংবাদের শিরোনাম হন রুমন।

ওই রাতেই রুমন সাতক্ষীরার ভোমরায় নিজের গাড়ি দুর্ঘটনায় পড়ে অজ্ঞাত স্থানে চলে যান। সোমবার দুপুরে ফের দৃশ্যপটে রুমন।
জানা গেছে, দুর্ঘটনাকবলিত গাড়িটি ফেলে রেখে রুমন রাতে এক তরুণীসহ শহরের মাগুরার বউ বাজারের পাশে বাঁশতলার সোনা চোরাচালানী মিলন পালের বাগান বাড়িতে আড্ডা দেয়। সকালে এ খবর জানাজানি হতেই গ্রামবাসী বাড়ি ঘিরে ফেলে। পরে উদ্ধারের সময় গণপিটুনির শিকার হয় এমপিপুত্র।
লাবসা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আবদুল হান্নান জানান, সকালে জানাজানি হয় যে রুমন এক তরুণীসহ তার এলাকার মিলন পালের বাগান বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে। তার বন্ধু মিলন বর্তমানে সোনা চোরাচালান মামলায় জেলে আটক রয়েছে।
তিনি বলেন, খবর পেয়ে সেখানে যেতেই দেখি কাটিয়া এলাকার বহু মানুষ। তারা রুমনকে খুঁজছেন। রুমন মারধরের ভয়ে রুমের ভেতর থেকে তালা লাগিয়ে দেয়।
আবদুল হান্নান আরও জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। পুলিশও সাধ্যমত চেষ্টা করে রুমনকে রুম থেকে বের করার। কিন্তু তারা ব্যর্থ হন।
তিনি বলেন, এর কিছু সময় পর জেলা যুবলীগ নেতা আবদুল মান্নান সেখানে পৌঁছান। তার সঙ্গে ছিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তামিম আহমেদ সোহাগ ও যুবলীগ পৌর কমিটির আহবায়ক মনোয়ার হোসেন অনু।
তারা তাকে রুম থেকে বের করতেই শুরু হয়ে যায় এলোপাতাড়ি গণপিটুনি। গ্রামবাসী রুমনকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে। এ সময় রুমন মাটিতে পড়ে যায়। তাকে দ্রুত উদ্ধার করে আহত অবস্থায় মোটরসাইকেলে নিয়ে যান যুবলীগ নেতা আবদুল মান্নান। অজ্ঞাত সেই তরুণীকেও নিয়ে যান তিনি।
সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ হোসেন মোল্লা জানান, রোববার রাতে যুবলীগ নেতা জুলফিকার রহমান উজ্জ্বলকে হত্যার উদ্দেশে মারধরের ঘটনায় রুমনকে প্রধান আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে। এই মামলায় তাকে গ্রেফতারের জন্য এসআই রফিক ও এএসআই পাইক দেলোয়ারকে পাঠানো হয় মাগুরা বাঁশতলার সেই মিলন পালের বাগানবাড়িতে। কিন্তু সেখানে তাকে পাওয়া যায়নি।
এদিকে রুমনের এসব ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তার মা মিসেস রিফাত আমিন বলেন, রুমন সেখানে যাবে কেন? সেতো বাড়িতেই আছে। কারা তার সম্পর্কে এসব অপপ্রচার দেয় বলেন তো?


মন্তব্য