kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কাল চিলমারী যাবেন প্রধানমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৯:৩৬



কাল চিলমারী যাবেন প্রধানমন্ত্রী

দেশব্যাপী হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে কার্ডের মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে খাদ্যশস্য বিতরণের জন্যে ‘হতদরিদ্রদের জন্য খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি’ উদ্বোধন করতে প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল চিলমারী যাবেন।  
এই কর্মসূচির আওতায় নির্ধারিত ডিলারদের মাধ্যমে কার্ডধারীদের মাঝে ১০ টাকা কেজিতে প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল বিক্রি করা হবে।

সারাদেশে ৫০ লাখ হতদরিদ্র পরিবার ৫ মাসের জন্য এই কর্মসূচির সুফল পাচ্ছেন।  
চিলমারি থেকে বাসস প্রতিনিধি জানান, বুধবার সকাল ১০টায় কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা সদর থেকে এই কর্মসূচি উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী সর্বপ্রথম চিলমারীর থানাহাট পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক সুধি সমাবেশে ভাষণ দেবেন। পরে সমাবেশস্থলে চাল বিতরণের মধ্যদিয়ে ‘হতদরিদ্রদের জন্য খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি ’ উদ্বোধন করবেন।  
খাদ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত এই কর্মসূচি ও সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থাকবেন কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি, খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি ও খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব এ. এম বদরুদ্দোজা।  
বাসস প্রতিনিধি জানান, প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচিকে সফল করার জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ নির্বিঘেœ এই কর্মসূচি সম্পন্ন করতে প্রশাসন সার্বিক সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।  
প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাতে কুড়িগ্রাম সদর, চিলমারী ও উলিপুর আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।  
কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক খান মো: নুরুল আমিন বাসসকে জানান, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য ১০ টাকা মূল্যে চাল বিক্রির নতুন এই কর্মসূচির নাম দেয়া হয়েছে ইউনিয়ন পর্যায়ে ‘হতদরিদ্রদের জন্য খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি’।  
তিনি জানান, স্থানীয় জনপ্রতিধিদের মাধ্যমে হতদরিদ্রদের নির্বাচন করা হয়েছে। দেয়া হচ্ছে সুদৃশ্য কার্ড। ধান লাগানো ও ধান কাটার মধ্যবর্তী সময়ে যখন দিনমজুরদের হাতে কাজ থাকে না, তখনই এই কর্মসূচির সুফল পাবেন হতদরিদ্র পরিবারগুলো। কর্মসূচির প্রথম পর্যায়ে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর এবং আগামী বছরের মার্চ ও এপ্রিল মাসে নির্ধারিত ডিলারদের কাছ থেকে ১০ টাকা কেজি দরে সর্বোচ্চ ৩০ কেজি চাল কিনতে পারবেন কার্ডধারীরা।  
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রাম জেলায় মোট ১ লাখ ২৫ হাজার ২৭৯টি পরিবার খাদ্যবান্ধব কার্ডের মাধ্যমে সরকারের সৃজনশীল এই কর্মসূচির সুফল পাবেন। চাল বিক্রির জন্য জেলায় ২৪৭ জন সম্ভাব্য ডিলারের মধ্যে ১২৬ জনকে ইতোমধ্যে নিযুক্ত করা হয়েছে।  
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক মো: জাফর আলী বলেন, ‘দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য নেয়া নতুন যে কোন কর্মসূচি প্রধানমন্ত্রী কুড়িগ্রামেই উদ্বোধন করেন। এর আগে ২০১০ সালে ন্যাশনাল সার্ভিস চালু করেছিলেন এই কুড়িগ্রাম থেকেই। তাই কুড়িগ্রামবাসী তাকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত’।  


মন্তব্য