kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এই ৭দিনের শিশু ও মায়ের পাশে কেউ দাঁড়াতে পারেন না?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:২৫



এই ৭দিনের শিশু ও মায়ের পাশে কেউ দাঁড়াতে পারেন না?

ছবি-ইব্রাহিম খলিলের ফেসবুক

'আজ দুপুরে কার্জন হলের পাশে আমাদের ভার্সিটির বাসগুলোর পাশে ফুটপাতের ওপরে একটি সাতদিন বয়সী বাচ্চাকে নিয়ে এই মহিলাকে শুয়ে থাকতে দেখি । অবশ্য ওনাকে মহিলা বলার চেয়ে কিশোরী / শিশু বলাটাই বেশি যুক্তিযুক্ত ।

ওনার বয়স ১৫ - ১৬ বলে আমার ধারণা । চারিদিকে কি বিশ্রী কোলাহল , ধুলাবালি , আর দুপুরের প্রচণ্ড গরম , তার মাঝে মাত্র একটা পোস্টারের ওপরে এই মা তার বাচ্চাটিকে শোয়ায়ে রেখেছে । সত্যিই চোখ ফেটে পানি আসার অবস্থা আমার ।

কিন্তু কেউ এই হতভাগা মায়ের দিকে ফিরে ও তাকাচ্ছে না। তাদের কাছে খাওয়ার মতো কিছু নাই , এক ফোটা পানি ও নাই । আমি সামান্য কিছু খাবার কিনে দিয়েছিলাম , কিছু টাকা ও দিয়েছিলাম । কিন্তু প্রসূতি মায়ের জন্য যে খাবার দরকার তা আমি দিতে পারিনি ।

আমি মানলাম যে , এই মা অন্যায়ভাবে গর্ভ ধারণ করেছে , মানলাম বিবাহ বহিভূর্ত সে গর্ভ ধারণ করেছে । সে খুব খারাপ ইত্যাদি ইত্যাদি ।
যদিও সে বলেছে তার স্বামী তাকে ফেলে চলে গেছে ... ইত্যাদি। কিন্তু সে অতি আধুনিকাদের মত তো বাচ্চাটাকে ফেলে দেয়নি , বাচ্চাটাকে মারার চেষ্টা করেনি । বরং নিজের আচল দিয়ে বাচ্চাটাকে জড়িয়ে রেখেছে ।

আর ৭ দিনের শিশু , ও তো কোনও অন্যায় করেনি , ওর প্রতি তো এই সমাজের দয়া মায়া থাকার কথা । মহিলা / কিশোরীটি বলল যে - ৪ মাস আগে নাকি তার স্বামী তাকে তালাক দিছে , মেডিকেল থেকে বাচ্চার জন্মের ৫ ম দিনের দিন বের করে দিয়েছে। আমি জানি ঢাকা শহরে অনেক সরকারি বেসরকারি , স্বেচ্ছাসেবী অনেক সংস্থা এই রকম ফুটপাতে পরে থাকা অসহায় শিশুদের ভরণ পোষন করে থাকে । প্লিজ সবার কাছে অনুরোধ ৭ দিনের বাচ্চার মায়াবী চেহেরাটার কথা মনে করে ওর জন্য আপনি যদি কিছু করতে পারলে করেন।

কোনও প্রতিষ্ঠানকে বলে যদি কিছু করা যায় করেন । ওই বাচ্চাটা আমি / আপনি ও হতে পারতাম । কারণ জন্মের উপর কারো হাত থাকে না। সৃষ্টিকর্তা ওই মায়ের কোলে আমাকে / আপনাকে ও পাঠাতে পারতেন। '

ঠিক এমনই একটি আবেদন ফেসবুক জুড়ে পড়েছে।   সম্ভবত ইব্রাহিম খলিল একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী প্রথমে নিজের ফেসবুকে এই নবজাতক ও মায়ের ছবিটি পোস্ট করে ওপরের কথা গুলো যুক্ত করে দেন। এরপর থেকেই ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ, পেইজসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান।


মন্তব্য