kalerkantho


ঢাকায় সন্ত্রাসী ঘটনায় ভূটানের প্রধানমন্ত্রীর নিন্দা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ জুলাই, ২০১৬ ২০:২৬



ঢাকায় সন্ত্রাসী ঘটনায় ভূটানের প্রধানমন্ত্রীর নিন্দা

ভূটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে ঢাকায় সন্ত্রাসী ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, তার দেশ সবসময় বাংলাদেশের পাশে আছে। ভূটানের প্রধানমন্ত্রী জিম্মি সংকট অবসানে দ্রুত ও কঠোর ব্যবস্থা নেয়ায় বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশের জনগণ এ ঘটনার মধ্য দিয়ে একটি বার্তা পেয়েছে, সেটি হলো সেদেশের সরকার কোন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকা-কে প্রশ্রয় দেবে না।
থিম্পুর তাজ তাশি হোটেলে অবস্থানকারি ভূটানে চারদিনের সফররত বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে সেদেশের প্রধান মন্ত্রী তোবগে এ কথা বলেন।
বৈঠকে আব্দুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরন করে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার সবসময় সন্ত্রাসী কর্মকা- দমনে কঠোর অবস্থান নেয়।
রাষ্ট্রপতির প্রেসসেক্রেটারি জয়নাল আবেদিন বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেন, একদল বন্দুকধারী শুক্রবার রাতে রাজধানী ঢাকার গুলশান এলাকার কূটনৈতিক জোনে হোলি আর্টিশান বেকারিতে হামলা চালায়। এ সময় তারা ২০ জন বিদেশী নাগরিকসহ কিছু সংখ্যক লোককে জিম্মি করে। এই জিম্মি সংকটের অবসান ঘটাতে যৌথ বাহিনী ভবনটিতে অভিযান চালায়।
বৈঠকে আব্দুল হামিদ ভূটানে ব্যাপক জলবিদ্যুতের উল্লেখ করে বলেন, দেশটি বাংলাদেশে জলবিদ্যুৎ রফতানি করতে পারে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও ভূটান বিবিআইএন (বাংলাদেশ-ভূটান-ভারত-নেপাল)-এর অধীন এ ক্ষেত্রে যৌথ পদক্ষেপ নিতে পারে।
বৈঠকে শেরিং তোবগে বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে তার সরকারের আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন।
বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে যোগাযোগ বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এ ক্ষেত্রে দু’দেশের সরকারকেই পদক্ষেপ নিতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী দু’দেশের সরকারিভাবে সরাসরি বাংলাদেশে পাথর রফতানি করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন।
রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ তার সফরকালে আতিথীয়তার জন্য রাজ পরিবার, ভূটান সরকার এবং সেদেশের সরকারকে ধন্যবাদ জানান।
রাষ্ট্রপতি বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে ভূটানের সঙ্গে বাংলাদেশের চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে এবং দিন দিন এই সম্পর্ক আরো জোরদার হচ্ছে।
ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লেয়নপো ডামচো দোর্জি এ সময় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।



মন্তব্য