kalerkantho


মানুষের মনের বিকলাঙ্গতা দূর করতে হবে : ঢাবি উপাচার্য

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ১৯:০৪



মানুষের মনের বিকলাঙ্গতা দূর করতে হবে : ঢাবি উপাচার্য

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক সুস্থ সমাজ গঠনের লক্ষ্যে মানুষের মনের বিকলাঙ্গতা দূর করার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, জীবনে সফলতা অর্জনের ক্ষেত্রে শারীরিক প্রতিবন্ধীত্ব কোন বাধা নয়।
ঢাবি যোগাযোগ বৈকল্য বিভাগের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ শনিবার সিরাজুল ইসলাম লেকচার হলে এক সেমিনারে উপাচার্য প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।
বিভাগীয় চেয়ারম্যান অধ্যাপক হাকিম আরিফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ‘অটিজম: বাংলাদেশ চিত্র’ শীর্ষক বক্তৃতা প্রদান করেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দীন আহমেদ।
বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো: আখতারুজ্জামান, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম ও বিএসএমএমইউ-এর মনোরোগ বিভাগের অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ এস আই মল্লিক বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন।
উপাচার্য অধ্যাপক আরেফিন সিদ্দিক বলেন, প্রত্যেক মানুষের মধ্যেই অপার সম্ভাবনা রয়েছে। যথাযথ পরিচর্যার মাধ্যমে এসব সম্ভাবনা বিকাশের সুযোগ দিতে হবে।
স্টেফেন হকিন্স, আলবার্ট আইনস্টাইনসহ বিশ্বের কতিপয় বিখ্যাত ব্যক্তির উদাহরণ তুলে ধরে উপাচার্য বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধীত্ব তাদের সফলতার পথে কোন বিঘ্ন ঘটাতে পারেনি।
সমাজের মূল ধারায় প্রতিবন্ধীদের সম্পৃক্ত করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগাযোগ বৈকল্য বিভাগ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, অটিজম বিষয়ক প্রশিক্ষিত জনবল সৃষ্টি এবং যোগাযোগ বৈকল্যে আক্রান্তদের জীবনমান উন্নয়নে এই বিভাগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।
উল্লেখ্য, অটিজম সচেতনতা দিবস-২০১৬ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় যোগাযোগ বৈকল্য বিভাগের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ক্যাম্পাসে দিনব্যাপী কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়।
এসব কর্মসূচীর মধ্যে ছিল র‌্যালি, শিশু ও বয়স্কদের ভাষা ও বাচন সমস্যা শনাক্তকরণ কার্যক্রম, পোস্টার প্রদর্শনী এবং সেমিনার।
সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. সহিদ আকতার হুসাইন সিরাজুল ইসলাম লেকচার হলে ভাষা ও বাচন সমস্যা শনাক্তকরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।


মন্তব্য