kalerkantho


'কোরবানির পশু সুনির্দিষ্ট স্থানে জবেহকরণে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৩৭



'কোরবানির পশু সুনির্দিষ্ট স্থানে জবেহকরণে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে'

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক ধর্মীয় মূল্যবোধকে সমুন্নত রেখে জনস্বাস্থ্য ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা সর্বোপরি পরিবেশ সুরক্ষা বিবেচনায় নিয়ে কোরবানির পশু সুনির্দিষ্ট স্তানে জবেহকরণে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করতে এখন থেকে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সিটি কর্পোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি নির্দেশ প্রদান করেন।
আজ স্থানীয় সরকার বিভাগের সভাকক্ষে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোরবানির পশু নির্ধারিত স্থানে জবেহকরণ ও দ্রুত বর্জ্য অপসারণে করণীয় বিষয়ক এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় তিনি এ নির্দেশ প্রদান করেন।


সভায় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, গাজীপুর, কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ, বরিশাল, সিলেট, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাগণ ও বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশনসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও দফতরের কর্মকর্তাগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
সভায় সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত স্থানে কোরবানির পশু জবেহকরণ বিষয়টি সিটি কর্পোরেশনের ও পৌরসভার স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে এলাকা ভিত্তিক এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে মসজিদ ভিত্তিক জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এখন থেকেই ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা গ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।
এছাড়া সিটি কর্পোরেশনসমূহকে এলাকা ভিত্তিক কোরবানির পশু জবেহকরণের স্থান সুনির্দিষ্ট করতে হবে। পশু জবেহকরণের জন্য স্থান নির্ধারণ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য জনবল প্রস্তুত রাখাসহ সার্বিক বিষয়ে জগণকে অবহিত করতে হবে।
সভায় আরো জানানো হয়, কোরবানির পশু জবেহকরণের জন্য এমন স্থান নির্ধারণ করতে হবে, যেখানে জনগণ সহজেই পশু, মাংস ও চামড়া আনা-নেয়া করতে পারে। পশু কোরবানির পর পরিত্যক্ত বর্জ্য অপসারণের জন্য প্রয়োজনীয় যান ও যন্ত্রাদি প্রস্তুত রাখা, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে স্থানটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও পূর্বের ন্যায় ব্যবহার উপযোগী করতে হবে। সার্বিক ব্যবস্থাপনা ঠিক রাখতে সিটি কর্পোরেশনের স্থানীয় কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে ব্যবস্থাপনা গঠন করার আহ্বান জানানো হয়।


মন্তব্য