kalerkantho


শ্যালা নদীতে নৌ চলাচল স্থায়ীভাবে বন্ধ করার সুপারিশ স্থায়ী কমিটির

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ মার্চ, ২০১৬ ১৯:০৭



শ্যালা নদীতে নৌ চলাচল স্থায়ীভাবে বন্ধ করার সুপারিশ স্থায়ী কমিটির

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় অতিসত্তর মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল চালু করার মাধ্যমে শ্যালা নদীতে নৌ চলাচল স্থায়ীভাবে বন্ধ করার সুপারিশ করা হয়েছে।
সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে দ্বিতীয়বার কয়লাবাহী জাহাজ ভুবির প্রেক্ষিতে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়কে এ ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়।


আজ সংসদ ভবনের কমিটি সভাপতি মোহাম্মদ হাছান মাহমুদের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
কমিটির সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, টিপু সুলতান, মোঃ ইয়াসিন আলী এবং মেরিনা রহমান সভায় অংশ গ্রহণ করেন।
সভায় বিভিন্ন স্থানে পাহাড় কাটা ও কর্ণফূলী নদীতে দূষন সংক্রান্ত, জলবায়ূ তহবিল ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অগ্রপতি সংক্রান্ত আলোচনা করা হয়।
সভায় জলবায়ূ পরিবর্তন ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের একান্ত সচিব পদে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বিশেষ কোন প্রার্থীর প্রতি পক্ষপাতিত্ব হয়েছে কিনা এবং বন বিভাগ, বন গবেষনা ইনস্টিটিউটে ( তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর) সম্পূর্ণ নিয়োগের পদ ও পরীক্ষাওয়ারী লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের পূর্ণাঙ্গ তালিকা বিশ্লেষন করার জন্য কমিটির সদস্য টিপু সুলতানকে আহবায়ক করে এবং মো. ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী ও মেরিনা রহমানকে সদস্য করে তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।
গাজীপুরের বন বিভাগের জমি অবৈধ দখলদার প্রভাবশালী শিল্প মালিক ও রিসোর্টের মালিকদের একটি তালিকা সভায় উপস্থাপন করা হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে পাহাড়কাটা রোধ করার জন্য আইনের যথাযথ প্রয়োগ করে জরিমানা আদায়ের পাশাপাশি মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।
সভায় জানানো হয়, এ পর্যন্ত জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ডে ৩ হাজার কোটি টাকা জমা হয়েছে। এই ফান্ডের আওতায় বর্তমানে ৩৯৭ টি প্রকল্প চলমান রয়েছে। ট্রাস্ট ফান্ডের প্রকল্প কার্যক্রম মনিটরিং ব্যবস্থা আরো জোরদার করার পরামর্শ দেয়া হয়। জলবায়ূ পরিতর্বন ট্রাস্টফান্ডের মাধ্যমে ভূ-গর্ভস্থ পানির ব্যবহার কমিয়ে ভূ-উপরিভাগের পানির ব্যবহার বৃদ্ধির জন্য প্রকল্প গ্রহণ করার সুপারিশ করা হয়।
সভা শেষে সংসদ মিডিয়া সেন্টারে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ বৈঠকে আলোচিত বিভিন্ন বিষয়ে আলোকপাত করেন। পাশপাশি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।
সভায় পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য