kalerkantho


'এরকম বাক্সের মধ্যে চাইলে অনেককিছু রেখে যাওয়া সম্ভব'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ মার্চ, ২০১৬ ২০:৪০



'এরকম বাক্সের মধ্যে চাইলে অনেককিছু রেখে যাওয়া সম্ভব'

শাহজালাল বিমানবন্দরের বিভিন্ন দরহগাহর নামে 'দানবাক্স' অপসারণ করা হয়েছে। সম্প্রতি বিমানবন্দরে বিভিন্ন দরগার নাম লেখা ৫২ টি বাক্স খুলে ফেলা হয়েছে।   'বিমানবন্দর নাকি কোন বাবার দরগাহ!! বাবা মাইন্ড করলেও করুক, খুলে ফেললাম সব। টাকার স্তুপ.. গুণার টাইম নাই..' এয়ারপোর্ট ম্যাজিস্ট্রেট-এর ফেসবুক ফ্যান পেইজে এমনটাই লেখা হয়েছে।

বিমানবন্দরে নিযুক্ত ম্যাজিস্ট্রেট ইউসুফ জানান,  কে বা কারা এগুলো ঝুলিয়ে রেখে যায় তার হদিস পাওয়া যায়না। আর অনেকে না বুঝে বিদেশে যাওয়ার আগে মনের দুর্বলতা থেকে এখানে টাকা ঢুকিয়ে দেয়। এটা কি বিমানবন্দর নাকি কোন বাবার দরগাহ। একটি বিমানবন্দরের জন্য এগুলোকে ঝুঁকি বলে মনে হয়েছিলো। তাই এগুলো খুলে ফেলার সিদ্ধান্ত হয়। এরকম বাক্সের মধ্যে চাইলে কত কিছুইনা রেখে যাওয়া সম্ভব।

বাক্সগুলোতে যে টাকা ছিলো সেগুলো ঘটা করে বের করা হয়েছে। বিমানবন্দরে নাকি একটি চক্র আছে যারা এরকম বাক্স দিয়ে ভাল টাকা কামিয়ে নিচ্ছে।

মি ইউসুফ বলছেন, যখন আমরা বাক্সগুলো নামানো শুরু করলাম, আমাদের কাছে খবর এলো বাকিগুলো কে বা কারা খুলে নিতে শুরু করেছে। তা না হলে আরো পাওয়া যেত।

বাক্সগুলো থেকে তাই টাকা পাওয়া গেছে মোটে সাত আট হাজার। যা আপাতত জমা আছে। যেহেতু এগুলো দানের টাকা তাই হয়ত এগুলো আবার দানই করা হবে।
বিমানবন্দরে নাকি একটি চক্র আছে যারা এরকম বাক্স দিয়ে ভাল টাকা কামিয়ে নিচ্ছে।


মন্তব্য