kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


৭০ এর নির্বাচনে বিজয়ী হওয়াই ছিল বঙ্গবন্ধুর একমাত্র অপরাধ :কেনেডি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৫১



৭০ এর নির্বাচনে বিজয়ী হওয়াই ছিল বঙ্গবন্ধুর একমাত্র অপরাধ :কেনেডি

যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর এডওয়ার্ড এম কেনেডি ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বিজয় অর্জনকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একমাত্র অপরাধ বলে বর্ণনা করে বলেছেন, এ জন্যই তাঁকে কারান্তরীন রাখা হয় এবং পাকিস্তানের জেলের ভেতর তাঁর গোপন বিচার করা হয়।
ভারতে পূর্বপাকিস্তানে রিফুজিক্যাম্পগুলো চারদিন পরিদর্শনের পরে ১৯৭১ সালের ১৬ আগস্ট নয়াদিল্লীতে এক সংবাদ সম্মেলনে কেনেডি বলেন, ‘নির্বাচনে বিজয় অর্জনই মুজিবের একমাত্র অপরাধ। ’
তিনি বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ায় পশ্চিম পাকিস্তানী আর্মির পূর্ব পাকিস্তান দখল ত্বরান্বিত হয়।
শেখ মুজিবুর রহমানের গোপন বিচারের সমালোচনা করে ম্যাসাসুয়েটস থেকে নির্বাচিত ডেমোক্রেট সিনেটর বলেন, এই বিচার আন্তর্জাতিক আইনের সকল ধারণার পরিপন্থী।
ভারতে কেনেডির এই সফর নিয়ে ওয়াশিংটন পোস্ট ১৯৭১ সালের ১৭ আগস্ট ‘কেনেডি চার্জেস জেনোসাইড ইন পাকিস্তান, আর্জেস এইড কাটঅফ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।
কেনেডি অভিযোগ করেন যে, ‘পাকিস্তান পূর্ব পাকিস্তানে পরিকল্পিত গণহত্যা চালিয়েছে। ’
তিনি পাকিস্তানের পূর্ব-অংশে বিবাদের অবসান না ঘটানো পর্যন্ত পাকিস্তানকে আমেরিকান সামরিক ও অর্থনৈতিক সাহায্য সম্পূর্ণ বন্ধ রাখার আহ্বান জানান।
তিনি পাকিস্তানে আমেরিকার অস্ত্র সরবরাহের নীতির সমালোচনা করেন এবং পাকিস্তানের পক্ষ নেয়াকে ইন্দো-আমেরিকান সম্পর্কের জন্য ক্ষতিকর বলে উল্লেখ করেন।
একই ইস্যুতে দুইবার পুলিৎজার পুরষ্কার বিজয়ী সাংবাদিক সিডনি এইচ স্যানবার্গ লিখিত প্রতিবেদন ‘কেনেডি, ইন ইন্ডিয়া, টার্মস পাকিস্তানী ড্রাইভ জেনোসাইট’ ১৯৭১ সালের ১৭ আগস্ট নিউইয়র্ক টাইমস প্রকাশ করে।
রিপোর্টে স্যানবার্গ লিখেছেন, সংকটের বিস্তার ঘটে ২৫ মার্চ (১৯৭১), যখন পাকিস্তানী আর্মি পূর্ব পাকিস্তানে বাঙালির স্বাধীনতা আন্দোলন স্তব্ধ করে দেয়ার চেষ্টায় আকস্মিক আক্রমণ চালায়।
কেনেডি বলেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের নীতি ‘আমাকে হতবুদ্ধি করেছে... এবং এরফলে ঘটে যাওয়া মানবিক দুদর্শা দেখার পর আমার মনে হয়েছে এটি এ যাবতকালের বৃহত্তম বিপর্যয়। ’
বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণার পর ২৬ মার্চ রাতে ধানমন্ডির বাসভবন থেকে পাকিস্তানী আর্মি তাকে গ্রেফতার করে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যায়।
২৬ মার্চ বন্দী হিসেবে বঙ্গবন্ধুকে বিমানে করে পাকিস্তান নিয়ে যাওয়া হয়। একই দিনে জেনারেল ইয়াহিয়া খান এক বেতার ঘোষণায় আওয়ামী লীগ নিষিদ্ধ করেন এবং বঙ্গবন্ধুকে বিশ্বাসঘাতক হিসেবে অভিহিত করেন।
১৯৭১ সালের আগস্ট ও সেপ্টেম্বরের মধ্যে পাকিস্তানের লালপুর কারাগারে বঙ্গবন্ধুর গোপন বিচার করে। বিচারের রায়ে বঙ্গবন্ধুকে মৃত্যুদ- দেয়া হয়।
১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে পাকিস্তানী বাহিনীর আত্মসমর্পণের আগ পর্যন্ত স্বাধীনতা যুদ্ধ অব্যাহত থাকে। প্রায় তিন সপ্তাহ পর ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দেয়। সে সময়ের পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জুলফিকার আলী ভুট্টো রাওয়াল পিন্ডি বিমান বন্দরে নতুন স্বাধীন বাংলাদেশে অবিসংবাদিত নেতাকে বিদায় জানান।


মন্তব্য