kalerkantho


২০টি ড্রেজার সংগ্রহের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে : নৌ পরিবহন মন্ত্রী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ মার্চ, ২০১৬ ১৮:০৪



২০টি ড্রেজার সংগ্রহের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে : নৌ পরিবহন মন্ত্রী

নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, সরকারের বর্তমান মেয়াদে ২ হাজার ৪৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০টি ড্রেজার সংগ্রহের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, নৌ পথে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহন খরচ অন্যান্য খােেতর চেয়ে কম ও পরিবেশ বান্ধব। সে জন্য নৌ পথের নাব্যতা বজায়ের লক্ষ্যে যদি নদী খননের কার্যক্রম গ্রহণ করি তাহলে আমরা লাভবান হবো।
আজ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতক কনফারেন্স সেন্টারে নেদারল্যান্ডের একটি কোম্পানী আ্ইএইচসি আয়োজিত ‘তৃতীয় রয়েল আইএইচ ডেজিং” সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন নেদারল্যান্ডের বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিসেস লিওনি কিউলিনেয়ার। বক্তব্য রাখেন সিইজি আইএর ডেপুটি নির্বাহী পরিচালক এম এইচ সরকার কর্নফুলি এমডি আব্দুর রশিদ প্রমুখ।
শাজাহান খান বলেন, বাংলাদেশ একটি নদী মাতৃক দেশ। ছোট বড় ৭শটি নদী, জল প্রবাহও খাল মিলে প্রায় ২৪ হাজার কিলোমিটার নৌপথ ছিল। বিগত সরকারগুলোর অযতœ ও অবহেলার ফলে ঐ নৌ পথ বর্ষাকালে ৬ হাজার কিলোমিটারে এবং শুস্ক মৌসূমে ৩ হাজার ৯শ’ কিলোমিটারে এসে দাঁড়ায়।
তিনি বলেন, নৌ পথের নাব্যতা বজায় ও উন্নয়নের লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার আন্তরিক ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ের দিক-নির্দেশনায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরিণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) নৌপথ খনন কাজ বাস্তবায়ন করছে।
তিনি বলেন, ২০০৯ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ১২শ’ কিলোমিটার নৌ পথ খনন করা হয়েছে। সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে ৫৩টি নৌপথ খনন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
তিনি বলেন, নদীর পানি কমে যাওয়ায় একদিকে মাছের উৎপাদন ওসেচ কার্যক্রম ক্রমশ হ্রাস পাচ্ছে। অপরদিকে বন্যার পানি প্রবাহে বাঁধা সৃষ্টির ফলে দেশের সার্বিক অর্থনীতির ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে। এ পেক্ষিতে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে নৌ পথের নাব্যতা উন্নয়নের লক্ষে ড্রেজিং করা অপরিহার্য হয়ে দেখা দিয়েছে।


মন্তব্য