kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


'পুলিশকে সহায়তার জন্য রাজাকার বাহিনী গঠন করা হয়'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৩২



'পুলিশকে সহায়তার জন্য রাজাকার বাহিনী গঠন করা হয়'

যদিও মুক্তিকামী লোকদের হত্যা করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস করে দিতে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী সহায়তা করার লক্ষ্যে রাজাকার বাহিনী গঠন করা হয়েছিল। অবশ্য একজন শীর্ষস্থানীয় যুদ্ধাপরাধী দাবি করেছেন যে, ১৯৭১ সালে পুলিশকে সহায়তা করতে আনসারের বদলে ওই বাহিনী গঠন করা হয়েছিল।


স্বাধীনতা বিরোধী আখতার উদ্দিন আহমেদ তার আত্মজীবনীর ওপর ভিত্তি করে লেখা বই ‘ইসলামের জাতীয়তাবাদ : ইন্দো-পাকিস্তান পর্ব’-এ লিখেছেন ‘পুলিশকে সহায়তার জন্য আনসারের পরিবর্তে রাজাকার বাহিনী গঠন করা হয়েছিল। ’
ওই বইয়ে আরো লেখা হয়েছে ‘প্রাথমিকভাবে রাজাকারের সংখ্যা ছিল ২৫ হাজার, পরে এই সংখ্যা ৫০ হাজারে উন্নীত হয়। আগস্টে এই বাহিনী সরাসরি সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে চলে আসে। ’
পুতুল গভর্নর এ এম মালেক মন্ত্রিসভার শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী আখতার উদ্দিনের লেখা ৩৩৭ পৃষ্ঠার বইটি ১৯৮২ সালে নিউইয়র্ক থেকে ছাপা হয় এবং এর দু’বছর পর এটি পুনরায় ছাপা হয় ভারত থেকে।
রাজাকার অথবা রেজাকার বাহিনী এ কে এম ইউসুফের নেতৃত্বে খুলনার খানজাহান আলী রোডের একটি আনসার ক্যাম্পে জামায়াতে ইসলামীর ৯৬ জন কর্মী নিয়ে গঠিত হয়।
ইউসুফের (বর্তমানে মৃত) বিচার চলাকালে বহু সাক্ষি তাদের সাক্ষ্য প্রদানকালে এই কুখ্যাত বাহিনীর গঠন এবং মানবতার বিরুদ্ধে এর নানা ঘৃণ্য কার্যক্রমের বর্ণনা দিয়েছেন।
আখতারউদ্দিনের বইয়ে বলা হয়েছে, বিভিন্ন স্থাপনায় পাহারা দেয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও লোকদের হত্যার পাশাপাশি আরও কিছু কাজে রাজাকারদের ব্যবহার করা হতো। - বাসস।


মন্তব্য