kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এনজিও ফোরাম মিলনায়তনে কর্মশালায় বক্তারা

দুর্যোগ মোকাবেলায় গণমাধ্যম দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ মার্চ, ২০১৬ ১৯:০৮



দুর্যোগ মোকাবেলায় গণমাধ্যম দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে পারে

দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় ব্যাপক জনসচেতনতা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে গণমাধ্যম দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে পারে।

বিশেষ করে দুর্যোগ প্রস্তুতিতে গণমাধ্যমের দিক-নির্দেশনা দেওয়ার সুযোগ রয়েছে। আগামীতে বাংলাদেশের গণমাধ্যম সেই ভূমিকা রয়েছে। আজ বুধবার রাজধানীর লালমাটিয়ায় এনজিও ফোরাম মিলনায়তনে এক কর্মশালায় এ কথা বলেন বক্তারা।

অক্সফামের সহায়তায় এনজিও ফোরাম আয়োজিত ‘দুর্যোগে মানবিক সাড়াদান এবং ঝুঁকি মোকাবেলায় গণমাধ্যমের অংশগ্রহণ ও ভূমিকা’ শীর্ষক কর্মশালায় মূল বক্তব্য উত্থাপন করেন এনজিও ফোরামের ডিজাষ্টার ম্যানেজার কাজী মনির মোশাররফ। এতে এনজিও ফোরামের তথ্য ও গণসংযোগ সেলের ব্যবস্থাপক সাহা দীপক কুমার, সাংবাদিক নিখিল ভদ্র ও শওকত আলী খানসহ অন্যান্যরা বক্তৃতা করেন।

কর্মশালায় মূল বক্তব্যে বলা হয়, যে কোন দুর্যোগ-ঝুঁকি মোকাবেলায় দুর্যোগের আগে, চলাকালীন ও পরে গণমাধ্যম বড় ধরণের ভূমিকা রাখতে পারে। বিশেষ করে দুর্যোগের আগে জনগোষ্ঠির ঝুঁকি নিরুপন, ঝুঁকি কমানোর কৌশল ও প্রস্তুতির স্তর বিশ্লেষণ দুর্যোগ চলাকালে পরিস্থিতি বিশ্লেষণ, ক্ষয়ক্ষতি নিরুপন এবং দুর্যোগের পর দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যাবার উপায় এবং মানুষের চেস্টায় ঘুরে দারাবার উদ্যোগগুলো তুলে ধরতে পারে গণমাধ্যম।

আরো বলা হয়, একটি শক্তিশালী যোগাযোগ মাধ্যম হিসাবে দুর্যোগের সময় গণমাধ্যম অতি দ্রুত বেশী সংখক মানুষের কাছে বার্তা পৌঁছে দিতে পারে। দুর্যোগকালে তথ্য যোগানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ, জনসাধারণের দুর্যোগ সম্পর্কিত তাৎক্ষণিক অনিশ্চয়তা দূর করার পাশাপাশি দুর্যোগ মোকাবেলায় বিভিন্ন দায়িত্বরত গোষ্ঠিকে নানান গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে অবহিত করা। দুর্যোগে বিপদ হ্রাসের পরিমাণ ও বিপন্নতা প্রশমিত করার মাত্রার ওপড় দুর্যোগের ব্যপ্তি ও প্রভাব নির্ভরশীল। আর এসব বিষয় নিশ্চিত করতে গণমাধ্যমের কার্যকর ভূমিকা রাখা সম্ভব। সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে গণমাধ্যমে দুর্যোগ সম্পর্কিত সংবাদ, ফিচার এবং দুর্যোগের সময় করণীয় সম্পর্কে নিয়মিত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে বলে কর্মশালায় আশা প্রকাশ করা হয়।

 

 


মন্তব্য