kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


'সরকারি ও বেসরকারি খাতের সম্মিলিত প্রয়াসে দেশের পাটখাত হারানো গৌরব ফিরে পাবে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ মার্চ, ২০১৬ ১৯:১১



'সরকারি ও বেসরকারি খাতের সম্মিলিত প্রয়াসে দেশের পাটখাত হারানো গৌরব ফিরে পাবে'

সরকারি ও বেসরকারি খাতের সম্মিলিত প্রয়াসে দেশের পাটখাত হারানো গৌরব ফিরে পাবে এবং পাট চাষীরাও উপকৃত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে দেশের বেসরকারী খাতের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই)।
পণ্যে পাটজাত মোড়ক আইন বাস্তবায়নে অবদানের স্বীকৃতি দেয়ায় সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে দেয়া এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ এ আশাবাদ ব্যক্ত করে এফবিসিসিআই।


এতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এ সম্মাননা পাওয়ায় এফবিসিসিআই পরিচালকবৃন্দ অত্যন্ত গৌরবান্বিত বোধ করছে এবং পাট খাতের উন্নয়নে সরকারের সাথে কাজ করতে আগ্রহী ।
এফবিসিসিআই নেতৃবৃন্দ মনে করেন, পাট আমাদের অর্থনীতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ খাত। আমাদের ইতিহাসে পাটের এক সোনালী অধ্যায় রয়েছে। তবে মাঝখানে দেশের পাটশিল্প অনেক অবহেলার শিকার হয়েছিল। বিশ্ববাসী আবারও প্রাকৃতিক তন্তু ব্যবহারে উৎসাহিত হচ্ছে। ফলে দেশ-বিদেশে পাটের বাজার সম্প্রসারণের এক উজ্জল সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।
তারা বলেন, পাটজাত পণ্যের বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় বৃহৎ পাট উৎপাদক দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য বিশাল এক সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচিত হয়েছে। বিষয়টি উপলব্ধি করে বর্তমান সরকার গত কয়েক বছর ধরে পাটখাতের উন্নয়নে অত্যন্ত ইতিবাচক ও কার্যকর পরিকল্পনা গ্রহণ করে চলেছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাটকে কৃষি পণ্য হিসেবে ঘোষনা করে এ পণ্যের বিপনন ও রপ্তানীর ক্ষেত্রে সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির ঘোষনা দেয়ায় সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে তারা আরো বলেন, এফবিসিসিআই পাটশিল্পের উন্নয়নে নীতি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে সরকারের সাথে একত্রে কাজ করতে আগ্রহী।
উল্লেখ্য পণ্যে পাটজাত মোড়ক আইন বাস্তবায়নে অবদান রাখায় গত ৬ মার্চ এফবিসিসিআই সহ বেশ কয়েকটি সংগঠনকে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ সম্মাননা প্রদান করেন।


মন্তব্য