kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


'বিচারপতির বক্তব্যে রায় বহাল নাও থাকতে পারে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ মার্চ, ২০১৬ ১৪:১৫



'বিচারপতির বক্তব্যে রায় বহাল নাও থাকতে পারে'

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা নিয়ে মন্তব্য করায় জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল নাও থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। আজ শনিবার বেলা ১২টার দিকে একটি অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কামরুল বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা নিয়ে প্রধান বিচারপতির দেওয়া বক্তব্যে অনুমান করা যাচ্ছে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল নাও থাকতে পারে।

কামরুল বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা নিয়ে প্রধান বিচারপতির দেওয়া বক্তব্যে অনুমান করা যাচ্ছে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল নাও থাকতে পারে। তিনি বলেন, এই মামলার রায় কী হবে তা প্রধান বিচারপতির প্রকাশ্যে আদালতে বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আমি অনুধাবন করতে পেরেছি। তার বক্তব্যের মধ্যে এটা অনুধাবন করেছি যে, এই মামলায় আর মৃত্যুদণ্ডের রায় দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এরপরও যদি মীর কাসেমের মামলার রায়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়- তাহলে সবাই ভাববে, সরকার চাপ দিয়ে এই কাজ করিয়েছে।

উল্লেখ্য, মীর কাসেম আলীর আপিল মামলা শুনানিকালে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এবং তদন্ত সংস্থা যে গাফিলতি করেছে এ জন্য তাদের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো উচিত। তিনি বলেন, আমরা রাষ্ট্রপক্ষের মামলা পরিচালনায় খুবই মর্মাহত। মামলার এভিডেন্স দেখলে, এগুলো পড়লে আমাদের খুব কষ্ট লাগে। মামলাগুলো যখন আমরা পড়ি, তখন আমাদের গা ঘিনঘিন করে তাদের মামলা পরিচালনা দেখে। সব মামলায় এটা হয়ে আসছে।

এরপর প্রধান বিচারপতি অ্যাটর্নি জেনারেলকে বলেন, এত হাফ হার্টেড হয়ে আপনারা মামলা চালান কেন? প্রধান বিচারপতি আরও বলেন, প্রসিকিউশন, তদন্ত সংস্থার পেছনে রাষ্ট্রের লাখ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে। কিন্তু তারা এসব কী মামলা পরিচালনা করছে? ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা শুধু ব্যস্ত টিভিতে চেহারা দেখানো নিয়ে। তারা দামিদামি গাড়ি চড়েন আর পুলিশের হুইসেল দিয়ে ঘুরে বেড়ান।

 


মন্তব্য