kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এখনও শুরু হয়নি বিশ্বভারতীতে বাংলাদেশ ভবন নির্মাণের কাজ

সুব্রত আচার্য্য, কলকাতা    

৪ মার্চ, ২০১৬ ২১:৪২



এখনও শুরু হয়নি বিশ্বভারতীতে বাংলাদেশ ভবন নির্মাণের কাজ

প্রতিশ্রুতি মতো বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শান্তি নিকেতনের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ ভবনের কাজ শুরু না হওয়ায় তীব্র হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসে নিযুক্ত উপরাষ্ট্রদূত জাকি আহাদ। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ওই ভবন নির্মাণের জন্য ২৫ কোটি টাকার চেক তুলে দেওয়া হলেও আজ শুক্রবার পর্যন্ত প্রস্তাবিত বাংলাদেশ ভবনের ফাউন্ডেশনও দেওয়া হয়নি।

আজ শুক্রবার জকি আহাদ ও উপদূতাবাসের প্রতিনিধি দল প্রতিশ্রুতি মতো কাজ সম্পন্ন না করায় নিজেদের মধ্যে তীব্র হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। যদিও এ বিষয়ে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

জানা গেছে, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য সুশান্ত দত্তগুপ্তকে নিয়ে নানা অভিযোগ ওঠার কারণেই বাংলাদেশের প্রধানামন্ত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছা অনুযায়ী এ ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়নি। প্রায় দেড় বছর ধরে নানা দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে খবরের শিরোনাম হয়েছেন সুশান্ত দত্তগুপ্ত। ফলে বিশ্বভারতী প্রশাসন ওই ঘটনায় ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে। তবে সম্প্রতি সুশান্ত দত্তগুপ্তকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এরপরই নতুন উপচার্য হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন স্বপন কুমার দত্ত। তিনি এসে অবশ্য বাংলাদেশ ভবনের কাজ শুরুর উদ্যোগ নেন।

জানা গেছে, নতুন প্রশাসন আগামী ২৪ মাসের মধ্যে এ ভবন নির্মাণের  কাজ শেষ করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়। সেই প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন এবং বর্তমান অবস্থা সরেজমিনে পরিদর্শন করতে আজ শুক্রবার নির্মিতব্য বাংলাদেশ ভবনের পরিদর্শন করেন কলকাতার বাংলাদেশ উপদূতাবাসের একটি প্রতিনিধি দল। উপরাষ্ট্রদূত জকি আহাদের নেতৃত্বে ওই প্রতিনিধি দলে ছিলেন দূতাবাস প্রধান মিয়া মহম্মদ মাইনুল কবির, শিক্ষা ও ক্রীড়া কাউন্সিল ওমর ফারুক খান এবং প্রথম সচিব বাণিজ্য সাইফুল ইসলাম।

আজ শুক্রবার দুপুরে প্রতিনিধি দলটি বিশ্বভারতীর নির্মিতব্য বাংলাদেশ ভবনের স্থানটি ঘুরে দেখেন। এর আগে বৃহস্পতিবারই প্রতিনিধি দলটি বোলপুরে পৌঁছায়। এ সময় বিশ্বভারতী উপাচার্য অধ্যাপক স্বপন কুমার দত্ত প্রতিনিধি দলকে স্বাগত জানান। বাংলাদেশ ভবনের নির্মাণকারী সংস্থা ন্যাশনাল বিল্ডিং কনস্ট্রাকশন করপোরেশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গেই এদিন পৃথকভাবে বৈঠকে বসেন বাংলাদেশ উপদূতাবাসের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশ ভবন তৈরি হচ্ছে। এর জন্য বাংলাদেশ সরকার ২৫ কোটি টাকাও দিয়েছে। যদিও ভবনের ফাউন্ডেশনও এখন পর্যন্ত নির্মাণ করা হয়নি।

এদিকে, উপদূতাবাস থেকে জানানো হয়, প্রতিশ্রুতি মতো বাংলাদেশ ভবন নির্মাণ না হওয়ায় হতাশ হলেও বর্তমান প্রশাসনের প্রতিশ্রুতিতে তাঁরা পূর্ণ আস্থা রাখছেন। আগামী ২৪ মাসের মধ্যে এ ভবন নির্মাণ করা হবে বলে বিশ্বভারতীর বর্তমান প্রশাসন নিশ্চিয়তা দিয়েছে বলে জানান উপদূতাবাসের প্রেস সচিব মোফাকখারুল ইকবাল।


মন্তব্য