kalerkantho


তথ্য ও জ্ঞান বিনিময় বাড়ানোর আহ্বান অর্থমন্ত্রীর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ এপ্রিল, ২০১৪ ১৫:০৮



তথ্য ও জ্ঞান বিনিময় বাড়ানোর আহ্বান অর্থমন্ত্রীর

মেক্সিকোতে অনুষ্ঠিত দুই দিনব্যাপী বৈশ্বিক সহযোগিতাবিষয়ক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোর উন্নয়নের স্বার্থে দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতার আলোকে আরো বেশি মাত্রায় এ দেশগুলোর মধ্যে তথ্য ও জ্ঞান বিনিময় বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।
উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতার আলোকে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, শ্রম অভিবাসন এবং জ্ঞান ও তথ্য বিনিময়ের সম্পসারণ এ দেশগুলোর জন্য বহুমুখী কল্যাণ বয়ে আনতে পারে বলে অর্থমন্ত্রী উল্লেখ করেন। শুক্রবার অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের জনসংযোগ বিভাগ সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফর ইফেকটিভ ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন (জিপিইডিসি) আয়োজিত দুই দিনব্যাপী এ আন্তর্জাতিক বৈঠকে বিশ্বের ১৩০টি দেশ থেকে আসা সরকারি, বেসরকারি, সুশীল সমাজ ও আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিসহ দেড় হাজারের বেশি প্রতিনিধি অংশ নেন। মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটিতে গত ১৫ থেকে ১৬ এপ্রিল এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
বৈঠকে অংশগ্রহণকারীরা আগামী দিনগুলোতে বিশ্বব্যাপী উন্নয়ন সহযোগিতার কার্যকারিতা বাড়ানোর জন্য একটি যৌথ ইশতেহার এবং ২৮টি বিশেষ উদ্যোগের অবতারণা করেন।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের নেতৃত্বে বাংলাদেশ থেকে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। প্রতিনিধিদলে রয়েছেন মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন এবং সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ।
১৫ এপ্রিল বৈঠকের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন, অরগানাইজেশন ফর ইকনমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টন্টের (ওইসিডি) মহাসচিব এঞ্জেল গুরিয়া ও মেক্সিকোর রাষ্ট্রপতি পেনা নিয়েতো উপস্থিত ছিলেন।
অর্থমন্ত্রী তার বক্তব্যে অভ্যন্তরীণ সম্পদের যোগান বৃদ্ধির ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বাংলাদেশের উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশে রাজস্ব ও মোট দেশজ উৎপাদনের অনুপাত ২০০৯ সালে যেখানে ছিল ১০.৫ শতাংশ, তা বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৪ সালে ১৩.৫ শতাংশে উন্নতী হয়েছে।

’  
উল্লেখ্য, সভার প্রথম দিন ১৫ এপ্রিল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) প্রধান হেলেন ক্লার্কের সঙ্গে এক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। এ সময় তারা বাংলাদেশে একটি দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতাবিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান স্থাপনের পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করেন।
বৈঠকের সময় তারা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও দেশটির অর্থনৈতিক সম্ভাবনা নিয়েও আলোচনা করেন। একই সঙ্গে তারা বাংলাদেশ সরকারের প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের পরিকল্পনা-সংক্রান্ত রোড ম্যাপ নিয়ে মতবিনিময় করেন।
এ সময় মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে একটি ফোকাস সেশনে অংশগ্রহণকালে মন্ত্রিপরিষদসচিব বলেন, ‘বাংলাদেশে উন্নয়ন সাহায্য এখনো অনেকটাই ছোট ছোট প্রকল্পে বিভাজিত অবস্থায় রয়েছে, যদিও সাম্প্রতিক সময়ে এ অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে। ’
তিনি আরো জানান, উন্নয়ন সাহায্যের বিভাজন রোধের জন্য বাংলাদেশ ইতিমধ্যে একটি লোকাল কনসালটেটিভ গ্রুপ, যৌথ সহযোগিতা কৌশল এবং একটি উন্নয়ন ফলাফল কাঠামো দাঁড় করিয়েছে যার মাধ্যমে উন্নয়ন সহযোগিতার ক্ষেত্রে আরও বেশি সমন্বয় রক্ষা এবং সরকারের উন্নয়ন প্রাধান্যের সঙ্গে সমন্বয় রক্ষা সম্ভব হচ্ছে। ’


মন্তব্য