kalerkantho


এক হিরো আলমকে ভরা মজলিশে নাস্তানাবুদ করতে পারলেই...

ইফতেখায়রুল ইসলাম   

১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ১৪:০০



এক হিরো আলমকে ভরা মজলিশে নাস্তানাবুদ করতে পারলেই...

ছবি- সংগৃহীত

দেশে ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় বহুল প্রচারিত বিষয় হরেক পদের 'টক শো'। আগে যদিও প্রায়শই দেখা হতো, এখন টক শো এমন ধরনের ‘অতি স্বাভাবিক’ বিষয়ে পরিণত হয়েছে যে দেখা বা শোনার প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয়না বললেই চলে! আর যখন বক্তার চেয়ে সঞ্চালক বেশি বলেন- তখন সেই বিশেষ 'টক শো' তার মূল্য এবং অবস্থান দুই-ই হারায়।

হামেশা ঘুরেফিরে একই বক্তার সকল বিষয়ে বক্তব্য প্রদান আমাদের বিস্মিত করলেও আর কাউকে করে কিনা জানি না! মাঝে মাঝে খুব জানতে ইচ্ছা হয় যে, একজন সঞ্চালকের ভূমিকা আসলে কী বা কতটুকু? পরিমিতিবোধের অভাবটুকু যখন তীব্রতর হয় তখন মনে প্রশ্ন আসাটা স্বাভাবিক যে আদৌ সঞ্চালক নিজে তার ভূমিকা কতটুকু তা জানেন কি না? 

সোশ্যাল মিডিয়াতে একটা দীর্ঘ সময় ধরে 'হিরো আলম' নামের একজনকে মোটামুটি আমাদেরই একটি বিশাল অংশ পজিটিভ, নেগেটিভ মার্কেটিং করে বেশ পরিচিত করে তোলেন! হিরো আলম যে সমাজে, পরিবেশে, অবস্থানে ছোটবেলা থেকে বেড়ে উঠেছেন তার অবস্থান বা পরিবেশে অন্য যে কেউ থাকলে সেটিকে তার কাছেও ঠিক বিশেষ পাওয়া বলেই মনে হতো! হিরো আলমও তাই নিজেকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে পরিচিতি পাওয়া একজন বলেই মনে করছেন এখন! তার এই মনে করাতে দায়টি আসলে কার?

 
সমাজে আমাদেরই এক বিশাল অংশ কি এই দায় এড়াতে পারেন?  অভিনেতা হিসেবে হিরো আলম অনেকের কাছেই সাধুবাদ পাবেন না তার পেছনে কারণ হলো, আমরা আমাদের বিভিন্ন স্বনামধন্য অভিনেতাদের অভিনয় দেখে ঋদ্ধ! তাই সত্যিকারার্থে অভিনয় দিয়ে দর্শক তুষ্ট করতে হলে হিরো আলমকে সেই পথ পাড়ি দিয়েই আসতে হবে! তিনি আসলে কতোটা সফল বা অসফল সেটি দেখানোর ইচ্ছা নিবৃত্ত করে তাঁর সাথে হয়ে যাওয়া বৈরী আচরণকেই প্রাধান্য দেয়া উচিত বলে মনে করি! 

সাম্প্রতিক তিনি জাতীয় নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র কিনেছেন একটি দলের হয়ে। অনেকেই কিনেছেন কিন্তু আলোচনা সকলকে নিয়ে তেমন হয়নি বা হচ্ছেও না! তাকে নিয়ে হচ্ছে মানে বুঝতে হবে এর সংবাদ মূল্য রয়েছে, আর সেই জায়গা থেকেই ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে তাকে বারবার করে উপস্থাপন করা হচ্ছে এবং সেটি খুব কদর্যভাবে। রাজনীতি আসলে রাজনীতিবিদদেরই করা উচিত, যিনি পথের, ঘাটের, তৃণমূলের ভাষা বোঝেন তিনিই তো করবেন রাজনীতি।  

প্রশ্ন আসতে পারে- তবে হিরো আলমের মাথায় রাজনীতি করার মতো চিন্তা কেন আসলো? একটু মাথা খাটালেই আপনি অনুভব করতে পারবেন এই ‘কেন’র উত্তর! এ বিষয়ে আপনার, আমার ভূমিকাকেও খাটো করে দেখবার কোনো কারণ নাই। 

মনোনয়ন চাওয়ার পর একজন মানুষকে ( পড়ুন 'মানুষ') নিয়ে যে কদর্য খেলাটি শুরু হলো তা আসলে মননে, মগজে আমরা কতটা বর্ণবাদী তারই প্রতিফলন! গুটিকয়েক সঞ্চালক হয়তো ভেবেই বসেছেন এক হিরো আলমকে ভরা মজলিশে জাতির সামনে নাস্তানাবুদ করতে পারলেই তাঁদের সঞ্চালনা জীবন পূর্ণতা পাবে! 

নিজেদের ব্যবসায়িক মানদণ্ড বিবেচনা করে আপনার সমাজে অপাংক্তেয় একজনকে হাজির করে বারংবার অপমান করে আপনি আসলে কার মুখোশ উন্মোচন করছেন? হিরো আলমের, নিজের নাকি আমাদের এই সমাজ ব্যবস্থার? 

হিরো আলম নয়তো আপনার, আমার মতো উচ্চশিক্ষিত নন, কিন্তু সমাজের উঁচু তলায় বসবাসকারী এই আমাদের তাকে উপরে তোলার দরকারই বা কি ছিল আর এখন তিনি আমাদের ‘ভদ্র পল্লীর’ যোগ্য নন সেটি প্রমাণেরই বা দরকার কী। 

তিনি এই সমাজের জন্য অপাংক্তেয় সেটি প্রমাণ করলে আপনার, আমার জাত বুঝি একটু উপরে উঠে যায়?!

 ইফতেখায়রুল ইসলাম : সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (ডেমরা জোন)
[লেখকের ফেসবুক পেজ থেকে সংকলিত]



মন্তব্য