kalerkantho

‘পরিবহন পুলিশ’ দরকার

২৩ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সারা দেশের সড়ক-মহাসড়কগুলো ভয়ংকর মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। প্রতিদিন মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছে। ফিটনেস ও রুট পারমিট ছাড়াই লাইসেন্সবিহীন অদক্ষ চালকরা গাড়ি চালাচ্ছে; পথচারীদের হত্যা করছে। পরিবহন খাতে পরিকল্পনা, মহাপরিকল্পনা, আলোচনা, আশ্বাস-প্রতিশ্রুতি দেওয়া চলছেই। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকেও গণপরিবহনে শৃঙ্খলা আনতে বিভিন্ন সময়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ওই সব নির্দেশনাও মানা হচ্ছে না। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সমন্বয়হীনতাই সমস্যা সমাধান না হওয়ার বড় কারণ। পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা প্রশাসনের সহায়তায় নানা কৌশলে ফিটনেস সার্টিফিকেট ও ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহ করে সড়ক-মহাসড়কে যানবাহন নামাচ্ছে। দুর্ঘটনার জন্য দায়ী মালিক, শ্রমিক বা দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কখনো কঠোর ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না। অপরিকল্পিতভাবে ঢাকা শহরের দ্রুত বিস্তার ঘটানো হয়েছে। ঢাকা শহরের উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কর্তৃপক্ষ থাকলেও সমস্যা অনুধাবনে অক্ষমতা, দায়িত্ব পালনে অবহেলা, ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে দিন দিন নানা সমস্যা তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। শহর দিন দিন অনিরাপদ ও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে। জনসংখ্যা ও যানবাহনের অস্বাভাবিক চাপ শহরের পরিবেশ দূষিত ও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে; সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঢাকা শহরের লোকসংখ্যা বেড়েছে। যানবাহনের সংখ্যাও অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে। কিন্তু জনসংখ্যা ও যানবাহনের অনুপাতে ঢাকায় রাস্তার পরিমাণ কম। যত কঠিন কাজই হোক না কেন, গণপরিবহন খাতে শৃঙ্খলা আনতে হবে। ঔপনিবেশিক আমলের ধারাবাহিকতায় গড়ে ওঠা পুলিশ বাহিনী ও প্রশাসন দিয়ে এ কঠিন সমস্যার সমাধান করা সম্ভব নয়। এর জন্য বিশেষ ‘পরিবহন পুলিশ বাহিনী’ দরকার। পরিবহন খাতের পরিচালনা ও তদারকির জন্য দুর্নীতিমুক্ত ও দক্ষ প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তুলুন। এতে সেনাবাহিনীকেও যুক্ত করা যেতে পারে।

বিপ্লব বিশ্বাস

ফরিদপুর।

মন্তব্য