kalerkantho


সংসদ সাধারণ মানুষের নৈকট্য লাভ করুক

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



সংসদে গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখা, আইনের শাসন তথা আর্থ-সামাজিক মৌলিক প্রশ্নে দল-মত-নির্বিশেষে ঐকমত্য গড়ে তোলার আহ্বান জানাই। জাতীয় ঐকমত্য ছাড়া রাষ্ট্রের শান্তি ও সমৃদ্ধি আসতে পারে না। তাই একাদশ জাতীয় সংসদের কাছে প্রত্যাশা রাখি—জনপ্রতিনিধিরা নিজ নিজ এলাকায় থেকে সাধারণ মানুষের নৈকট্য লাভ করে এলাকার উন্নয়নে আত্মনিয়োগ করবেন। কোনো অজুহাতে প্রতিনিধিরা রাজধানীতে পড়ে থাকবেন না। নিজ এলাকা সন্ত্রাসমুক্ত ও মাদকমুক্ত রাখবেন। চাটুকারীর দ্বারা প্রভাবিত হবেন না, গণতন্ত্র রক্ষার্থে সাম্প্রদায়িকতার মূলোৎপাটন করবেন। এলাকার প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখবেন যেন গণতন্ত্রের শান্তির সুবাতাস অবশ্যই বহমান থাকে। স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি ক্ষমতায় নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে শুধু দেশ নয়, সারা বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে; ক্ষমতাসীন দল যেন জনগণের অভিভাবক হয়ে সেই দায়িত্ব পালন করে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা। সংসদে গণমানুষের কথা জনপ্রতিনিধিরা পেশ করবেন। দেশবিরোধী চক্র কর্তৃক যেন কোনো জনপ্রতিনিধি নিয়ন্ত্রিত না হন। দেশের ৬৮ হাজার গ্রামের মানুষ যেন তাদের চিকিৎসা পায়। সন্ত্রাসী কর্তৃক, ক্ষমতাসীন দলের কোনো কর্মীর দ্বারা যেন সাধারণ মানুষ নির্যাতিত না হয়। চাঁদাবাজির হাত থেকে মানুষ যেন রক্ষা পায়। অতীতের অভিজ্ঞতা বর্তমান সরকারের যথেষ্ট আছে, তাই বলতে চাই, ব্যাংকিং খাতে দুর্নীতি, মানবপাচারের মতো অমানবিক কাজ, সন্ত্রাস, পরিবহনে চাঁদাবাজি, শিক্ষাক্ষেত্রে প্রশ্ন ফাঁস, পুলিশ প্রশাসনের পরিচ্ছন্নতা, তথা সমাজের, রাষ্ট্রের প্রতিটি স্তরে যে ঘুণ ধরেছে—গভীরভাবে পর্যবেক্ষণে থেকে ক্ষমতাসীন দলকে মোকাবেলা করতে হবে।

নিমাই কৃষ্ণ সেন

বাগেরহাট।



মন্তব্য