kalerkantho


আন্তরিকতা ও সচেতনতা প্রয়োজন

১৮ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



ঈদ উৎসবে মা ও মাটির টানে ঘরে ফেরা মানুষকে অনেক সময়ই পড়তে হয় নানা দুর্ঘটনা ও অস্থিরতায়। যানজট ও সড়ক দুর্ঘটনার কারণে অনেকের ঈদের আনন্দটাই মাটি হয়ে যায়। সড়ক, নৌপথ ও রেলওয়ে খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে সরকারের সদিচ্ছার কথা আমরা টেলিভিশন ও মন্ত্রী-আমলাদের বক্তব্যেই শুনি। বাস্তবে অবস্থা খুবই শোচনীয়। ঈদে বর্ণনাতীত দুর্ভোগে পড়তে হয় ট্রেনযাত্রীদের। যাত্রাপথের সব ক্ষেত্রে দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, পকেটমারসহ নানা ধরনের অরাজকতা বন্ধে অতিরিক্ত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করতে হবে। কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেলে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে হবে। যানজট নিরসনে দিনের বেলায় প্রাইভেট কার ও ভারী মালবাহী যানবাহন সড়ক ও মহাসড়কে চলাচল বন্ধ করতে হবে। কোনোক্রমেই ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় বের করতে দেওয়া যাবে না। এ ছাড়া বিপজ্জনক পয়েন্ট হিসেবে চিহ্নিত স্থানগুলোতে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হবে। যানজট নিরসনে যৌক্তিক পদক্ষেপ নিতে হবে। ভ্রাম্যমাণ আদালতসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে হবে। তাড়াহুড়ো না করে ধীরস্থির যাত্রা করতে হবে। সাধারণ জনগণ ও প্রশাসনের আন্তরিকতা এবং সচেতনতায় ঈদের যাত্রা সুন্দর ও নির্বিঘ্ন হতে পারে।

মাজহারুল ইসলাম লালন

নকলা, শেরপুর।

 



মন্তব্য