kalerkantho


স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনই কাম্য

২৮ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত করতে সুষ্ঠু ও সঠিক গণতন্ত্রচর্চার বিকল্প নেই। আর গণতান্ত্রিকচর্চা অব্যাহত রাখতে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের বিকল্প নেই। দেশে শাসনব্যবস্থা নড়বড়ে হয়ে পড়ে যখন সে দেশে নির্বাচনব্যবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ে। আসন্ন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করার বিকল্প নেই। বিগত নির্বাচনগুলো যে খুব বেশি স্বচ্ছ হয়েছে তা বলার কোনো উপায় নেই। তবে মন্দের ভালো হয়েছে। কিন্তু এই মন্দের ভালো দিয়ে দেশ ও জনগণের কল্যাণ সম্ভব নয়। বর্তমান সরকারের আওতায় সঠিক নির্বাচন সম্ভব, যদি সংশ্লিষ্ট মহল আন্তরিক হয়। কোনোভাবেই বল প্রয়োগের নির্বাচন দেখতে চাই না আমরা। নির্বাচন কমিশনকে নামমাত্র স্বাধীন ও নিরপেক্ষ হলে চলবে না। নৈতিক ও প্রকৃত স্বাধীন সত্তার অধিকার দিতে হবে কমিশনকে। বিরোধী দলের প্রতি আন্তরিক হতে হবে ক্ষমতাসীনদের। কোনোভাবেই  কোনো দলের প্রার্থীদের নির্বাচনী অধিকার ক্ষুণ্ন করা যাবে না। জবরদস্তি করে ভোটকেন্দ্র দখলের যে ঘটনা আমরা এর আগে লক্ষ করেছি, তার পুনরাবৃত্তি চাই না। এ বিষয়ে সরকারের আন্তরিকতা কাম্য। যেহেতু ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনে নির্বাচন সংঘটিত হচ্ছে, তাই সব দলের প্রতি আন্তরিক হয়ে সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচন পরিচালনা করতে হবে। প্রশাসনকে একটি অবাধ নির্বাচন সম্পন্ন করতে নৈতিক দায়িত্ব পালন করতে হবে। কোনো স্বজনপ্রীতি গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা চাই সুষ্ঠু রাজনীতির চর্চা হোক। গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক। জনগণের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুন্দর পরিবেশ তৈরি করা হোক। হানাহানি ও অরাজকতা বন্ধ করে গণতন্ত্র সুপ্রতিষ্ঠিত করে দেশ গড়তে প্রতিটি নির্বাচন হোক অবাধ, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ।

মাজহার লালন

নকলা, শেরপুর।



মন্তব্য