kalerkantho


পাথরে আট দিন

১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



পাথরে আট দিন

দুঃসাহসিক কাজে মানুষের আগ্রহ নতুন কিছু নয়। প্রাচীনকাল থেকেই অজানাকে জানার ও নতুনকে বোঝার জন্য মানুষ বেছে নিয়েছে ভয়ংকর ও কঠিক সব রাস্তা।

আর ঠিক ওই পথেই এবার হাঁটলেন ফ্রেঞ্চ শিল্পী আব্রাহাম পর্শোভেল। ফেব্রুয়ারির ২২ তারিখে নিজেকে একটি পাথরখণ্ডের ভেতর আটকে ফেলেন টানা আট দিনের জন্য।

৪৫ বছর বয়স্ক পর্শোভেলের পাথরে ঢোকার ঘোষণা দেওয়ার পর ভিড় জমে যায় প্যারিসের পালা দ্য টোকিও গ্যালারিতে। তবে পাথরের ভেতরে স্বেচ্ছাবন্দি হলেও সঙ্গে করে নিজের জন্য যথেষ্ট খাবার আর পানি নিয়েই ঢোকেন পর্শোভেল। পাথরটি দুই টুকরো করে একজন মানুষ বসে থাকার মতো জায়গা তৈরি করা হয়। পর্শোভেল ঢুকে পড়ার পর আবার জোড়া লাগিয়ে দেওয়া হয় টুকরো দুটি। ভাবছেন, ভদ্রলোক নিঃশ্বাস নিয়েছেন কিভাবে?  সে জন্য অবশ্য একটা ছোট্ট গর্ত করে দেওয়া হয় পাথরের গায়ে। মার্চের ১ তারিখে সুস্থ শরীরেই তিনি ওই পাথর থেকে বের হন।

হঠাৎ এমন অদ্ভুত ইচ্ছা হওয়ার পেছনের কারণ হিসেবে প্রাচীন এই পাথর সম্পর্কে জানার আগ্রহের কথা বলেন পর্শোভেল।

কাজটি করার আগে বেশ কিছুদিন শারীরিক ও মানসিক প্রস্তুতি নেন এই শিল্পী। তবে এত কিছুর পরও যদি কোনো রকম সমস্যা তৈরি হয়, তার সমাধানের জন্য একদল চিকিৎসক রাখা হয়েছিল আশপাশে। এ ছাড়া প্রতিদিন তাঁর পাথরের ভেতরে বাস করার অভিজ্ঞতাগুলো ছোট্ট একটি ক্যামেরার সাহায্যে ধারণ করে দেখানো হয় গ্যালারিতে।

ভাবছেন, বাহ! খুব সাহস তো লোকটার। কিন্তু নিজেকে বেশ ভীতু বলেই মনে করেন পর্শোভেল। ভয় পেয়েছিলেন এই ভেবে যে শারীরিক সমস্যা না হলেও মানুষের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকা আর এই বদ্ধ পরিবেশ তাঁর মানসিক ভারসাম্য নষ্ট করে দিতে পারে। অবশ্য মানুষ বাইরে থেকে পাথরের সঙ্গে কথা বলে সাহায্য করেছে পর্শোভেলকে সুস্থ থাকতে।

মানুষের প্রশ্ন ছিল শিল্পীর বাথরুম নিয়ে। এই সমস্যা সমাধানে পর্শোভেল খালি বোতলের সাহায্য নিয়েছেন। নিশ্চয়ই মনে মনে আওড়াচ্ছেন—পাগল! তবে অদ্ভুত হলেও সত্যি, এ ধরনের খ্যাপামি এই প্রথম নয় তাঁর। এর আগে লাইব্রেরির মেঝের গর্ত, খেলনা ভল্লুকসহ আরো অনেক কিছুর ভেতরে আট দিন, ছয় দিন, এক সপ্তাহও কাটিয়েছেন।

 

সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি


মন্তব্য