kalerkantho

জাদুর রহস্য

শূলে চড়ানো

প্রাচীনকাল থেকেই নানা ধরনের জাদু বা ম্যাজিক দেখিয়ে আলোড়ন তুলেছেন জাদুকররা। এমনই কিছু জাদু নিয়ে এই ধারাবাহিক আয়োজন। বর্ণনা করেছেন অমর্ত্য গালিব চৌধুরী

৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



শূলে চড়ানো

ভয়ানক শাস্তি হিসেবেই দেখা হয় শূলে চড়ানোকে। আগে কোনো অপরাধীকে ধারালো বাঁশ বা বর্শার মাথায় বসিয়ে দেওয়া হতো। নিজের ওজনেই হতভাগ্য মানুষটি নিচে নেমে যেত। দেহ এফোঁড়-ওফোঁড় করে দিয়ে যেত তীক্ষ বর্শা। বীভৎস শাস্তিটি মৃত্যুদণ্ডের পদ্ধতি হিসেবে আমাদের এই উপমহাদেশ, মধ্যপ্রাচ্য এবং ইউরোপের নানা অঞ্চলে ছিল বিখ্যাত। ব্রাম স্টোকার ‘কাউন্ট ড্রাকুলা’ যার চরিত্রে অনুপ্রাণিত হয়ে লিখেছিলেন, সেই রোমানীয় শাসক ভ্লাদ দি ইমপেলার বিশেষ কুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন অসংখ্য মানুষকে শূলে চড়িয়ে।

গত শতাব্দীর সত্তরের দশক থেকে জাদুকররা এই শূলে চড়ানোটাকে রীতিমতো ছেলেখেলা বানিয়ে ফেলল। মঞ্চে প্রথমে একটা ধারালো তলোয়ার খাড়াভাবে আটকানোর ব্যবস্থা করা হতো। এরপর জাদুকরকে তার সহকারীরা ধরাধরি করে বসিয়ে দিত তলোয়ারের ওপর। জাদুকর বেচারা তীক্ষ তরবারিতে গেঁথে যেতে বেশি সময় নিত না। কিন্তু এখানেই ঘটনার শেষ হতো না।

খানিক পরেই বিস্মিত দর্শক দেখত ‘প্রাণহীন’ জাদুকর তরবারিবিদ্ধ অবস্থায়ই নড়াচড়া করছে। পরে সহযোগীদের সাহায্যে বহাল তবিয়তে নেমে আসতেন। দেহের কোথাও একটা আঁচড় পর্যন্ত লাগত না। পরে এই জাদুর আরো এক সংষ্করণ জনপ্রিয় হয়। জাদুকরকে চিত করে শুইয়ে দেওয়া হতো সুচলো দণ্ডের ওপর। দর্শকদের সামনে দণ্ডের সম্মুখভাগ জাদুকরের শরীর ভেদ করে ওপরের দিকে বের হয়ে আসত। দুটি পদ্ধতিই বেশ রোমাঞ্চকর হওয়ায় এ জাদু কাছে পেয়ে যায় ভীষণ জনপ্রিয়তা।

কিন্তু কিভাবে একজন মানুষ এফোঁড়-ওফোঁড় হয়ে যাওয়ার পরও দিব্যি সুস্থ থাকছেন? জাদু বিশেষজ্ঞ হার্বাট বেকার এই জাদুর কৌশল নিয়ে একটা ধারণা দেন। তাঁর মতে, জাদুকরকে তীক্ষ তলোয়ারের ওপর বসানো হলেও, আসলে তা করা হয় না। জাদুকরের পোশাকের নিচে থাকে আরেকটি পোশাক, তলোয়ারের ডগা ওই পোশাকের সঙ্গে গেঁথে থাকে, আর জাদুকরের দেহ ভেদ করে তলোয়ারের যে অগ্রভাগ উঠে আসে, তা ওই পোশাকের সঙ্গে স্প্রিং দিয়ে চেপে রাখা রবারের তৈরি নকল অগ্রভাগ। পুরোটা ঘটে জাদুকরের পেছনে, কাজেই দর্শক কিছুই টের পায় না।

এ তো গেল বসা অবস্থায় শূলবিদ্ধ হওয়ার রহস্য। এর অপর ভার্সনটিতে জাদুকরকে শূলের ওপর শুইয়ে দেওয়া হয়। আসলে কিন্তু শূলের ডগাটি খুবই নরম কোনো রাবারে তৈরি। জাদুকরের  পোশাকের সামনের অংশে বিশেষভাবে আরেকটি রাবারের শূলের অগ্রভাগ চেপে রাখা থাকে। স্প্রিংয়ের সাহায্যে শূলের নিচের অংশের দৈর্ঘ্য হঠাৎ করে কমিয়ে আনা হয়, জাদুকর বেশ কিছুটা নেমে আসেন এবং নিজের শরীরের সামনের অংশে চেপে রাখা শূলটিকে মুক্ত করে দেন। ফলে দর্শকরা দেখতে পান একজন জীবিত মানুষ শূলবিদ্ধ হয়ে গেল। তবে এই কসরত দেখানো বেশ কঠিন। জাদুকরের গোটা দেহ ভর করে থাকে একটি দণ্ডের ওপর, কাজেই শারীরিকভাবে বেশ সমর্থ না হলে অথবা জাদুর সরঞ্জাম মজবুত না হলে দুর্ঘটনা ঘটা বিচিত্র নয়।

 


মন্তব্য