kalerkantho


রাশিয়ার কাচের সৈকত

৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



রাশিয়ার কাচের সৈকত

মানুষ ভুল করে। কখনো কখনো তা প্রকৃতির ওপরও প্রভাব ফেলে। কিন্তু সেই ভুল যখন প্রকৃতির আশীর্বাদে বদলে যায়, তখন অবাক হতেই হয়।

এমনটাই ঘটেছে রাশিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় শহর ভলাদিভাস্তকের আসুরি উপসাগরের সৈকতে। একসময় ভাঙা কাচের ভাগাড়ে পরিণত হওয়া এ সৈকত প্রকৃতির কল্যাণে এখন পর্যটকদের প্রিয় জায়গা।

সৈকতটি এখন গ্লাস বিচ বা কাচের সৈকত নামেই বেশি পরিচিত। সোভিয়েত আমলে এটা ছিল কাচের ভাঙা বোতল ও চীনামাটির প্লেটের ভাগাড়। কাছেই কারখানা থাকায় সেখান থেকে ট্রাকে করে বয়ে এনে বাতিল হয়ে যাওয়া কাচের জিনিসগুলো ফেলে দেওয়া হতো সৈকতে। এসব কাচের জিনিসে প্রতিনিয়তই আছড়ে পড়েছে সাগরের ঢেউ।

বছরের পর বছর ধরে আঘাত হানা এই ঢেউয়ে কাচ ক্ষয়ে গিয়ে পরিণত হয়েছে গোলাকার স্বচ্ছ পাথরে। ভাঙা কাচের কোনাগুলোও আর ধারালো নেই।

আর একেকটা টুকরো দেখতে একেক রকম হওয়ায় ভারি সুন্দর লাগে সৈকতটি। তাই আশপাশের এলাকা থেকে অনেকেই গ্লাস বিচে বাচ্চাদের নিয়ে আসেন ছুটি কাটাতে।

একসময় সৈকতটি ছিল কালো পাথরে ঢাকা। আগ্নেয়গিরি থেকে নেমে আসা লাভা জামাট বেঁধে সৃষ্টি হয়েছিল কালো পাথরের সৈকত। তবে পরে কালো পাথর ঢেকে গেছে রাশি রাশি কাচের টুকরায়।

সৈকতটি সবচেয়ে সুন্দর দেখায় শীতকালে। তখন সাদা বরফের ওপর ভেসে থাকা সবুজ, হলুদ ও নীল রঙের কাচের টুকরোগুলোর ওপর আলো পড়ে জ্বলজ্বল করতে থাকে। এ ধরনের কাচের টুকরোয় ঢাকা সৈকত চোখে পড়ে আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ায়ও।

 

আনিকা জীনাত


মন্তব্য